জয়পুর : আপনি এমন নিশ্চয়ই শুনেছেন, যেখানে যুগলেরা বলেন ‘তোমার জন্য চাঁদ এনে দেব’। রাজস্থানের আজমীরে বসবাসকারী ধর্মেন্দ্র কিন্তু শুধুমাত্র মুখে ওই কথা বলে ক্ষান্ত হননি। এই কাজ করে দেখিয়েছেন তিনি। ধর্মেন্দ্র তার বিবাহবার্ষিকীতে চাঁদ নিয়ে আসেননি ঠিকই, তবে স্ত্রীকে চাঁদে তিন একর জমি উপহার হিসাবে দিয়েছেন তিনি। ধর্মেন্দ্র জানিয়েছেন, নিজেদের অষ্টম বিবাহ বার্ষিকীতে তিনি স্ত্রী স্বপ্নার জন্য বিশেষ উপহার দিতে এই গিফট কিনেছিলেন।

তিনি জানান, “২৪ ডিসেম্বর ছিল আমাদের বিবাহ বার্ষিকী। আমি ওর জন্য বিশেষ কিছু করতে চেয়েছিলাম। প্রত্যেকে গাড়ি, গয়নার মতো নানান সম্পদ দেয়, তাই আমি আলাদা কিছু করতে চেয়েছিলাম। আর তাই আমি তার জন্য চাঁদে জমি কিনেছি।”

আরও পড়ুন – হাই প্রোটিন খাবার শরীরের জন্য আদৌ কতটা সঠিক, কী বলছেন বিশেষজ্ঞরা

ধর্মেন্দ্র আনিজা নামে ওই ব্যক্তি লুনা সোসাইটি ইন্টারন্যাশনালের মাধ্যমে এই জমিটি কিনেছিলেন। তিনি জানান, এই কাজ শেষ হতে প্রায় এক বছর সময় লেগেছে। এছাড়া তিনি জানিয়েছেন, “আমি খুশি। আমি মনে করি আমি রাজস্থানের প্রথম ব্যক্তি যিনি চাঁদে জমি কিনেছেন।”

স্বপ্না আনিজা জানিয়েছেন, তিনি তাঁর স্বামীর কাছ থেকে এমন উপহার স্বপ্নেও আশা করেননি। তিনি বলেন, “আমি খুব খুশি।” পাশাপাশি তিনি জানিয়েছেন, বিয়ের বিবাহ বার্ষিকীতেও পার্টির আয়োজন করা হয়েছিল।

আরও পড়ুন – এক মিনিটে ৭০০ রাউন্ড ফায়ার করার ক্ষমতা, ভারতীয় সেনা পাচ্ছে শত্রুর বুকে কাঁপুনি ধরানোর অস্ত্র

ধর্মেন্দ্রর স্ত্রী জানিয়েছেন, “মনে হয়েছিল আমরা সত্যই চাঁদে আছি। অনুষ্ঠানের সময় সে আমাকে সম্পত্তির দলিলের শংসাপত্র দিয়েছিলেন।” উল্লেখ্য, শাহরুখ খান ও প্রয়াত অভিনেত্রী সুশান্ত সিং রাজপুতেরও চাঁদে জমি রয়েছে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।