জয়পুর: দেশজুড়ে বাড়ছে গণপিটুনির ঘটনা৷ আকছাড় ঘটে চলেছে সম্মানরক্ষার্থে খুনের ঘটনা৷ সচেতনতামূলক বার্তা বা নির্দেশও কাজের কাজ হচ্ছে না৷ উপায় না দেখে এবার তাই কড়া আইন আনতে চলেছে রাজস্থান সরকার৷

গতবছর ডিসেম্বরেই বিজেপির বসুন্ধরা রাজে সরকারকে সরিয়ে রাজস্থানের ক্ষমতায় এসেছে কংগ্রেস৷ গণপিটুনি বা সম্মান রক্ষার্থে খুনের ঘটনা তাতে কমেনি৷ এবার তাই আরেক কংগ্রেস শাসিত রাজ্য মধ্যপ্রদেশের ধাঁচে আইন লাঘুর ভাবনা চিন্তা করার কথা জানিয়ে দিলেন রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী অশোক গেহলট৷

গোরক্ষকদের তাণ্ডবের ঘটনা ঘঠেছে উত্তরপ্রদেশে৷ গোপাচারকারী সন্দেহে গণপিটুনিতে মৃত্যু পর্যন্ত ঘটেছে৷ এই ধরণের অপরাধ বন্ধে তাই সে রাজ্যের সরকারকে কড়া আইন প্রয়ণের কথা জানিয়েছে ল-কমিশনার৷ ইতিমধ্যেই ল-কমিশনার েই মর্মে একটি রিপোর্টও পেশ করেছেন৷ গণপিটুনিতে অভিযুক্তকে প্রয়োজনে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের সুপারিশ করা হয়েছে৷ সঙ্গে বিরাট অঙ্কের জরিমানা৷

সম্প্রতি রাজস্থানে এক নব-দম্পতিকে হত্যার ঘটনা সামনে আসে৷ যা নিয়ে গোটা রাজ্যেই হইচই পড়ে যায়৷ অসবর্ণ বা ভিন্ন জাতে বিবাহের কারণেই তাদের খুন করা বলে অনুমান পুলিশের৷ রাজস্থানের শিরোহী জেলার এই ঘটনা বিধানসভাতে তুলে ধরেন মুখ্যমন্ত্রী গেহলট৷ এই প্রসঙ্গেই তিনি বলেন, ‘‘বিয়ে দম্পতির পরিবার মনে নাই নিতে পারে৷ কিন্তু তাদের হত্যার অধিকার কারোর নেই৷’’ জানিয়ে দেন এই ধরণের অপরাধ রুখতে কড়া আইন বাধ্যতামূলক৷

তবে, আইন করে অপরাধ নির্মূল করা কার্যত অসম্ভব৷ তাই মানুষকে সচেতন করতে শিক্ষা বিস্তারে বিশষ গুরুত্ব দিতে চায় কংগ্রেস পরিচালিত রাজস্থান সরকার৷ এই প্রসঙ্গেই রাজ্যে ৩২টি কলেজ চালুর কথা জানান মুখ্যমন্ত্রী অশোক গেহলট৷