জয়পুরঃ  গরিবি হঠাওয়ের ডাক দিয়েছিলেন ইন্দিরা গান্ধী৷ আর নাতি রাহুল দিলেন গরিবদের ন্যূনতম রোজকারের প্রতিশ্রুতি৷ কংগ্রেস সভাপতির আশ্বাস, ‘‘আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি, ২০১৯ সালে কংগ্রেস ক্ষমতায় আসলে ভারতের প্রত্যেক গরিবের ন্যূনতম আয় নিশ্চিত করা হবে। প্রতিটি রাজ্যে গরিবদের ন্যূনতম আয়ের ব্যবস্থা করা হবে। কেউ আর গরিব ও অভুক্ত থাকবে না৷”!

লোকসভা ভোটের আগে এভাবেই মাস্টারস্ট্রোক দিয়েছেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী। তাঁর এই সিদ্ধান্তকে কার্যকর করতে নেমে পড়ল রাজস্থান সরকার। দেশের মধ্যে প্রথম কোনও রাজ্য গরীব মানুষের জন্যে নুন্যতম আয়ের ব্যবস্থা চালু করছে।

রাজস্থানে ক্ষমতায় রয়েছে কংগ্রেস। সেখানকার মুখ্যমন্ত্রী অশোক গেহলট বলেন, রাহুল গান্ধী গরীব মানুষের জন্যে যে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তা ঐতিহাসিক। লোকসভা ভোটের আগে রাজস্থান সরকার গরীব মানুষের নুন্যতম আয়ের ব্যবস্থা খুলে দেওয়ার জন্যে কাজ করছে। খুব দ্রুত এই বিষয়ে প্রকল্পের ঘোষণা করা হবে বলে জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী।

প্রসঙ্গত, গরিবি হঠাওয়ের ডাক দিয়েছিলেন ইন্দিরা গান্ধী৷ আর নাতি রাহুল দিলেন গরিবদের ন্যূনতম রোজকারের প্রতিশ্রুতি৷ কংগ্রেস সভাপতির আশ্বাস, ‘‘আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি, ২০১৯ সালে কংগ্রেস ক্ষমতায় আসলে ভারতের প্রত্যেক গরিবের ন্যূনতম আয় নিশ্চিত করা হবে। প্রতিটি রাজ্যে গরিবদের ন্যূনতম আয়ের ব্যবস্থা করা হবে। কেউ আর গরিব ও অভুক্ত থাকবে না৷”

ট্যুইটারে রাহুল গান্ধী দাবি করেন, কোটি কোটি ভাই-বোনদের অভুক্ত রেখে নতুন ভারত গঠন করা আসম্ভব। ২০২২ সালে নতুন ভারত গঠনের লক্ষ্য নিয়েছে মোদী সরকার। প্রতিটি ভারতবাসীর মাথায় ছাদ, বিদ্যুৎ ও যাবতীয় সুযোগ-সুবিধা পৌঁছনোর প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। শুধু তাই নয়, বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মতো ভারতেও ইউনিভার্সাল বেসিক ইনকাম প্রকল্প চালু করার ভাবনাচিন্তা করছে মোদী সরকার।

শোনা যাচ্ছে, বেকারদের অ্যাকাউন্টে মাসের শেষে একটা অর্থ দেওয়া হতে পারে। তবে নির্দিষ্ট আয়ের নীচে ব্যক্তি বা দারিদ্র সীমার নীচে থাকা ব্যক্তিদেরও এই প্রকল্পে সামিল করার ভাবনা রয়েছে কেন্দ্রের। আর এই সমস্ত ঘোষণার আগেই নুন্যতম আয়ের ঘোষণা করে মাস্টারস্ট্রোক মারলেন রাহুল গান্ধী। এমনটাই মনে করছে রাজনৈতিকমহল।