জয়পুর: ১০০ টাকা তুলতে গিয়ে দেখেন এটিএম থেকে বেরিয়ে আসছে ৫০০ টাকার নোট। মানে ধরা যাক, তুলতে গিয়েছেন ৪০০০ টাকা, বেরিয়ে এল হাতে গরম ২০০০০। না টাকার গাছ নয়, এমনই ঘটনা বাস্তবেই ঘটেছে রাজস্থানের একটি এটিএমে। এলাকার লোকজন তো রাজা হয়ে গেল। আর মাথায় হাত পড়েছে অ্যাক্সিস ব্যাংকের।

ডেলি ভাস্করের রিপোর্ট অনুযায়ী, এই ঘটনা ঘটেছে রাজস্থানের ভরতপুরের ধীর টাউনে। এলাকার অ্যাক্সিস ব্যাংকের এটিএমে গিয়ে কয়েকজন দেখেন, ১০০ টাকার নোটের বদলে ৫০০ টাকা বেরিয়ে আসছে। খবর রটে যায় মুখে মুখে। সঙ্গে সঙ্গে এটিএমের সামনে পড়ে যায় লম্বা লাইন। কয়েক ঘণ্টার মধ্যে ২৫০ জন অন্ত ২ লক্ষ টাকা তুলে নেয় ওই এটিএম থেকে।

যখন অ্যাক্সিস ব্যাংক ঘটনার কথা জানতে পারে, তখন অনেক দেরি হয়ে গিয়েছে। এখন ব্যাংকের তরফ থেকে ওইসব গ্রাহকদের ঠিকানা খুঁজে খুঁজে তাদের টাকা ফেরাতে বলছে। গত ২৪ জুলাই এই ঘটনা ঘটেছে। খবর পেয়ে লোকজন যত পেরেছে তত টাকা তুলে নিয়েছে।

সূত্রের খবর, নাংলা গ্রামের বাসিন্দা রামরাজ ইতিমধ্যেই ব্যাংককে ১৬০০০ টাকা ফিরিয়ে দিয়েছেন। তাঁর কাছে ছিল ২০,০০০ টাকা। তবে সবাইকে খুঁজে বের করা বেশ মুস্কিল কারণ অনেকেই অ্যাক্সিস ব্যাংকের কাস্টমার নন। ব্যাংকের ব্রাঞ্চ ম্যানেজার বিপুল খান্ডেলওয়াল জানিয়েছেন, যারা ওই এটিএমে নোট ইনস্টল করেছিল, তারা ১০০ টাকার স্লটে ভুল করে ৫০০ টাকা ঢুকিয়ে দিয়েছিল। এটিএম বন্ধ রেখে সেই ভুল সংশোধন করা হয়েছে। তবে বাকিদের কাছ থেকে এখনও টাকা ফেরাতে পারেনি অ্যাক্সিস ব্যাংক।

 

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।