মুম্বই: রাজ কাপুরের মৃত্যু ১৯৮৮ সালে হলেও এতদিন ছিল তাঁর প্রতিষ্ঠিত আর কে স্টুডিও ৷ এবার চিরতরে মুছে যাচ্ছে ৷ওই সম্পত্তির হাত বদল হয়ে গোদরেজ প্রপার্টিজ কেনায় ওই জায়গায় গড়ে উঠছে আধুনিক শপিং সম্বলিত আবাসন৷

রাজ কাপুর তাঁর ছবি প্রযোজনার জন্য ১৯৪৮ সালে আর কে ফিল্মস নামে সংস্থাটি তৈরি করেন৷ এর কিছুদিনের মধ্যেই ১৯৫০ সালে তিনি গড়ে তোলেন আর কে স্টুডিয়ো। ওখান থেকেই একের পর সৃষ্টি হয়েছে জনপ্রিয় সব চলচ্চিত্র – একেবারে আওয়ারা, শ্রী৪২০, থেকে জিস দেশমে গঙ্গা বহতি হ্যায়, মেরা নাম জোকার, ববি, সত্যম শিবম সুন্দরম, প্রেমরোগ, রাম তেরি গঙ্গা মইলি প্রভৃতি ৷ আর কে ফিল্মস-এর ছাড়াও অন্যান্য প্রায় শ’খানেক ছবি এই স্টুডিওতে তৈরি হয়েছে৷ ১৯৯১ সালে করা ‘হেনা’ হল আর কে ফিল্মস ব্র্যান্ডে এখানে তৈরি শেষ ছবি হয়েছিল । অর্থাৎ বহুদিনই এখানে ছবি তৈরি হচ্ছিল না৷

তার উপর দু’বছর আগে এক বিধ্বংসী অগ্নিকাণ্ডের ধবংস হয়ে যায় আর কে স্টুডিও৷ এরপর গত অগস্ট মাসে রাজ কাপুরের ছেলেরা জানান এই স্টডিও পুনর্নিমাণ করা সম্ভব নয় এবং তা বিক্রি করে দেওয়া হবে৷ এর ফলে বলিউড ইতিহাসের একটা বিশেষঅধ্যায়ের ইতি ঘটছে ৷ কারণ সিনেমা তৈরির পাশাপাশি এখানে প্রতি বছর গণেশ পুজো এবং হোলি উৎসব পালন শুরু করেন রাজ কাপুর। এবার এই স্টুডিও ভেঙে আবাসন গড়ার কথা শুনে স্বাভাবিক ভাবেই অনেক সিনেমাপ্রেমী হতাশ হন৷

প্রায় ২.৫ একর জায়গা উপর ছিল স্টুডিও৷ এটি ভেঙে গোদরেজ প্রপার্টিজ ৩.৫ লক্ষ বর্গফুটের আবাসন এবং ৩৩ হাজার বর্গফুটের অত্যাধুনিক শপিং মল গড়ে তুলবে। তবে, কত টাকায় এই সম্পত্তি হাতবদল হয়েছে তা কোন পক্ষই জানাননি৷ তবে বিশেষজ্ঞদের ধারণা, এর বাজার মূল্য প্রায় ২০০ কোটি টাকা।

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও