পাটনা : একটানা বৃষ্টি। জলমগ্ন প্রায় গোটা বিহার। এরই মধ্যে সংবাদসংস্থা এএনআইয়ের পাঠানো ছবিতে শোরগোল পড়ল সোশ্যাল মিডিয়া ট্যুইটার জুড়ে। দেখা গিয়েছে খোদ বিহারের সড়ক নির্মাণ মন্ত্রীর বাড়ির সামনেই এক হাঁটু জল। কর্মের ফল বলে ছবিটিকে ব্যাখ্যা করেছেন নেটিজেনরা। বিহারের সড়ক নির্মাণ মন্ত্রী নন্দকিশোর যাদবের বাড়ির সামনে প্রায় এক হাঁটু জল।

এই ছবিকেই দেখে বিদ্রূপ করেছেন নেটিজেনরা। তাঁরা বলছেন এবার কেমন লাগবে যদি নিজে এই জমা জল পেরিয়ে অফিস যান। সাধারণ মানুষের কষ্টটা বুঝবেন তিনি। টানা তিন দিন ধরে বৃষ্টি চলছে বিহারে। খারাপ আবহাওয়ার সতর্কবার্তা ছিল আগে থেকেই। তবে তার চেহারা যে এতটা ভয়ঙ্কর হবে, তা ভাবা যায়নি। একে টানা বৃষ্টি, তার মধ্যে ঝোড়ো হাওয়া ও বজ্রবিদ্যুত।

পাটনা শহরের একাধিক জায়গায় জল জমে গিয়েছে। পুরোপুরি জলমগ্ন রাজবংশী নগর, রাজেন্দ্র নগর, কঙ্করবাগ এলাকা। রীতিমতো সমস্যায় পড়েছেন সাধারণ মানুষ। নিকাশি ব্যবস্থার বেহাল দশার জন্যই এই পরিস্থিতি বলে কটাক্ষ করেছেন বিহারের মানুষ। সেই পরিস্থিতি থেকে বাদ পড়েননি খোদ সড়ক নির্মাণ মন্ত্রীও।

সেই দশাকেই কটাক্ষ করতে ছাড়েননি ট্যুইটার ব্যবহারকারীরা। অনেকেই বিষয়টি যেমন কাজ তেমনই কর্ম বলতে ছাড়েনি। অন্যদিকে, গত কয়েকদিন আগে ভয়ঙ্কর ঘটনা ঘটেছে বিহারে। ভয়ঙ্কর বজ্রপাতে ৯২ জন মানুষের মৃত্যু হয়েছে। রাজ্যের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিভাগ জানিয়েছে, বিহারে বজ্রপাতের জেরে মৃত্যু হয়েছে মোট ৯২ জনের। আহত হয়েছেন অনেকে এবং মানুষের সাধারণ সম্পত্তির ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।

সরকারি একটি বিবৃতি জানিয়েছে, রাজ্যের ২৪ টি জেলায় বজ্রপাতের ঘটনায় গোপালগঞ্জে সর্বাধিক মৃত্যু হয়েছে। সেখানে মৃতের সংখ্যা ১৩ জন। মধুবনী ও নাওয়াদায় ৯ জন করে মারা গিয়েছে। ভাগলপুরে ৬ জন ও সিওয়ানে ৬ জন, দ্বারভাঙা, বাংকা, ইস্ট চম্পারণে পাঁচজন করে ও খাগাড়িয়া এবং ঔরঙ্গাবাদে তিন জনের করে মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া ওয়েস্ট চম্পারণ, কৃষ্ণগঞ্জ, জামুই, জাহানবাদ, পূর্ণিয়া, সুপুল, বক্সার, কাইমুর প্রতিটি জেলায় ২ জনের করে মৃত্যু হয়েছে।

সমস্তিপুর, শিবহার, সরন, সীতামারী ও মাধেপুরে এক জনের করে মৃত্যু হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। একাধিক জেলায় মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। মুখ্যমন্ত্রী নীতিশ কুমার মৃতদের পরিবারকে ৪ লক্ষ টাকা করে দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছেন। ইতিমধ্যেই বিহারের আটটি জেলায় ভারি থেকে অতি ভারি বৃষ্টির সতর্কবার্তা জারি করেছে আইএমডি।

প্রশ্ন অনেক: তৃতীয় পর্ব