কলকাতা: কাঠফাটা গরম থেকে কিছুটা স্বস্তি রাজ্যবাসীর। এখনই বঙ্গে তীব্র গরম পড়বে না বলে জানিয়েছে আবহাওয়া দফতর। আগামী ৪ থেকে ৫ দিন রয়েছে বৃষ্টির পূর্বাভাস (Rain Forecast)। এদিনও রাজ্যের একাধিক জেলায় বজ্রবিদ্যুৎ সহ বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে।

আবহাওয়া দফতর (Weather Office) সূত্রে খবর, উত্তরবঙ্গে দার্জিলিং জেলার কিছু অংশ, কালিম্পং ও উত্তর দিনাজপুরে বুধবার বজ্রবিদ্যুৎ সহ বৃষ্টি হতে পারে। বৃষ্টির পাশাপাশি এই জেলাগুলিতে ৩০ থেকে ৪০ কিলোমিটার বেগে বইবে ঝোড়ো হাওয়া। দক্ষিণবঙ্গে আলাদাভাবে বৃষ্টির পূর্বাভাস না থাকলেও মঙ্গলবারের রেশ অব্যাহত থাকবে। কোথাও কোথাও বিক্ষিপ্ত বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। আগামী কয়েকদিনে দক্ষিণবঙ্গের দুই ২৪ পরগনা, মেদিনীপুর, কলকাতা, হাওড়া, হুগলি, পুরুলিয়া, ঝাড়গ্রাম, দুই বর্ধমান, বীরভূম, বাঁকুড়া, নদিয়া, মুর্শিদাবাদে বজ্রবিদ্যুৎ-সহ বৃষ্টির সম্ভাবনার কথা জানিয়েছে হাওয়া অফিস। তাপমাত্রা খুব একটা বাড়বে না। বুধবার কলকাতার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা থাকবে ৩৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস, স্বাভাবিক। সর্বনিম্ন তাপমাত্রা থাকবে ২২.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসের আশপাশে। যা স্বাভাবিকের থেকে ৪ ডিগ্রি কম। গত ২৪ ঘণ্টায় বৃষ্টি হয়েছে ১০২ মিলিমিটার।

আবহাওয়া দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে, একটি নিম্নচাপ অক্ষরেখা পঞ্জাব থেকে সিকিম পর্যন্ত রয়েছে। যার ফলে প্রচুর জলীয় বাষ্প ঢুকছে উত্তর ও পূর্বের রাজ্যগুলিতে। সেই কারণেই রাজ্যে বৃষ্টির সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। আগামী ৪ থেকে ৫ দিন এই নিম্নচাপের কারণে বৃষ্টি হতে পারে। রাজ্য়ে দক্ষিণবঙ্গে চেয়ে উত্তরবঙ্গের জেলাগুলিতেই বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা বেশি।

এদিকে মঙ্গলবার টানা তিন ঘণ্টা বৃষ্টিতে জল জমে যায় শহরের বিভিন্ন এলাকা৷ রাজভবনের সামনেও জল জমে৷ রাজ্যের একাধিক এলাকায় বাজ পড়ে মৃত্যুর খবরও পাওয়া গিয়েছে। উত্তরবঙ্গের মালদহতে বিস্তীর্ণ এলাকায় প্রবল শিলাবৃষ্টি হয়েছে। যার জেরে জেলার আমচাষে ব্যাপক ক্ষতির আশঙ্কা করা হচ্ছে। সঙ্গে পাট চাষেও ক্ষতির সম্ভাবনা রয়েছে বলে বিশেষজ্ঞরা। অন্যদিকে যে সমস্ত জমিতে ধান কেটে রাখা ছিল সেই ধান ভিজে গিয়েছে বলে মাথায় হাত চাষিদের।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.