কলকাতা: পুজোয় যে এবার বৃষ্টি হবে সেই পূর্বাভাস আগেই দিয়েছিল আলিপুর আবহাওয়া দফতর। এবার পঞ্চমীর ভোর থেকেই তার আভাস পাওয়া গেল। ভোর থেকেই শুরু হয়েছে মেঘের গর্জন। সঙ্গে বৃষ্টি। বাকি দিনগুলো কেমন কাটবে তৈরি হচ্ছে সেই আশঙ্কা।

এদিন ভোর সাড়ে ৩টে থেকেই মেঘের গর্জন শুরু। বজ্র-বিদ্যুৎ সহ বৃষ্টি আরম্ভ হয় কিছুক্ষণের মধ্যেই।

যদিও ষষ্ঠী থেকে বৃষ্টির পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছিল, তবে আর আগেই নামল বৃষ্টি। কলকাতা সহ দক্ষিণবঙ্গে এই পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে। হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টিপাত হবে সর্বত্রই। যদিও আবহাওয়াবিদরা জানাচ্ছেন, একটানা কখনও বৃষ্টি চলবে না। তবে নবমী থেকে পরিস্থিতি ফের একবার বদলাতে শুরু করবে বলেই পূর্বাভাসে জানাচ্ছে আলিপুর হাওয়া অফিস।

হাওয়া অফিসের তরফে দেওয়া পূর্বাভাসে জানানো হয়েছে যে, নবমী থেকে বৃষ্টির পরিমাণ বাড়তে থাকবে। যা চলবে দশমী পর্যন্ত। কলকাতা সহ গোটা দক্ষিণবঙ্গের জন্যেই এই পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে। কিন্তু মূলত দিনের বেলায় বৃষ্টির আশঙ্কা থাকছে৷ তাই রাতের দিকে প্যান্ডেল হপিং-এর সুযোগ থাকছে৷ শুধু তাই নয়, কলকাতা সহ দক্ষিণবঙ্গের ক্ষেত্রে বৃষ্টিপাতের পূর্বাভাস থাকলেও সেই অর্থে ভারী বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা নেই বলেই জানাচ্ছে আবহাওয়া দফতর।

এদিকে, মানুষের ঠাকুর দেখা শুরু হয়ে গিয়েছে। তৃতীয়া থেকেই মণ্ডপে মণ্ডপে ভিড় ছিল চোখে পড়ার মত। পঞ্চমীতেও অনেকের পরিকল্পনা রয়েছে। কিন্তু সেই প্ল্যান হয়ত মাটি হতে চলেছে। এইভাবে বৃষ্টি সারাদিন চললে জায়গায় জায়গায় জল জমে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। ফলে মানুষের বেরতে সমস্যা হতে পারে।

উত্তরবঙ্গের মানুষের জন্যে খুব একটা ভালো খবর থাকছে না। কারণ উত্তরবঙ্গের ক্ষেত্রে কিন্তু ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা থাকছে। আলিপুরদুয়ারে কয়েক পশলা ভারী বৃষ্টি হওয়ার কথা জানানো হয়েছে৷ সঙ্গে উত্তরবঙ্গের বাকি জেলায় হালকা ও মাঝারি বৃষ্টির পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে৷ ফলে উত্তরবঙ্গের মানুষের কাছে আলিপুর হাওয়া অফিসের এই পূর্বাভাস রীতিমত অশনি সঙ্কেত বলেই মনে করা হচ্ছে। আবহাওয়াবিদরা জানাচ্ছেন, মৌসুমী বায়ু এখনও সক্রিয় রয়েছে। তাই বিদায় বেলাতে রাজ্যে বর্ষা শেষ ঝাপ্টা দিয়ে যাচ্ছে।