স্টাফ রিপোর্টার , কলকাতা : ওডিশার নিম্নচাপের জেরে দক্ষিণবঙ্গের বৃষ্টিহীন অবস্থা কিছুটা কাটল। কিছুটা, কারণ বৃষ্টির ব্যাপক প্রয়োজন ছিল সমস্ত দক্ষিণের জেলায়। শুধুমাত্র উত্তরবঙ্গের উপর নির্ভর করে রাজ্যের বৃষ্টির অঙ্ক স্বাভাবিক দেখাচ্ছিল কিন্তু ভিতরের চিত্রটা তেমন ছিল না। ঘাটতিতে ভরতি ছিল। সেখান থেকে ভালো বৃষ্টির সম্ভাবনা তৈরি হয়। তাও টানা তিন দিন ধরে। কিন্তু পূর্বাভাসের প্রথম তিন দিনে তেমনটা হয়নি যতটা দেখা যায় সম্ভাবনাময় চতুর্থ দিনে।

মোটের উপর বিক্ষিপ্ত বৃষ্টি কিছুটা হলেও অস্বস্তিকে কমিয়েছে। তবে বেশ কিছু জেলা এখনও বৃষ্টিহীনই রইল। হাওয়া অফিসের রেকর্ড সেই তথ্যই দিচ্ছে। বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত আসানসোলে বৃষ্টি হয়নি। বাগাতিতে ১২.০ মিলিমিটার, ব্যরাকপুরে ১৭.৪ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে, বর্ধমানে বৃষ্টি হয়নি, ক্যানিংয়ে ২৬.৬ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে, কাঁথিতে ১৫.০ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে, দিঘায় ০.৮ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে, ডায়মন্ড হারবারে ৩৬.৪ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে, হলদিয়ায় ৬৪.২ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে, কৃষ্ণনগরে বৃষ্টি হয়নি, পানাগড়, পুরুলিয়া, শ্রীনিকেতনের কোথাও বৃষ্টি হয়নি।

বুধবার সকাল পর্যন্ত আসানসোলে ৩.০ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়। ব্যরাকপুরে ২৬.৮ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়, বর্ধমানে ৮ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়, ক্যানিংয়ে ১.৬ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়, দিঘায় ৩.৯ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়, ডায়মন্ড হারবারে ৪০.৯ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়, হলদিয়ায় ৩৪.১ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়, কৃষ্ণনগরে ৬.২ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়, পানাগড়ে ১২.৬ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়।

মঙ্গলবার সকাল পর্যন্ত আসানসোলে ১৩.৬ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়। বাঁকুড়ায় ১১.৬ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়, বহরমপুরে ৯.২ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়, বর্ধমানে ২০.৬ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়, ক্যানিংয়ে ২৪.০ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়, দিঘায় ১২.১ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়, ডায়মন্ড হারবারে ৬.২ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়, হলদিয়ায় ১৩.০মিলিমিটার বৃষ্টি হয়, কৃষ্ণনগরে ৯.২ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়, মেদিনীপুরে ৫.২ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়।

এদিকে অতি ভারী বৃষ্টি আরও দুদিন চলবে উত্তরবঙ্গে। এমনটাই জানাচ্ছে আলিপুর আবহাওয়া দফতর। বৃহস্পতিবার রেকর্ড অনুযায়ী দেখা যাচ্ছে কোচবিহারে ১১৬.৬ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। দার্জিলিঙে ৩২.০ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। জলপাইগুড়িতে ১৩৬.৬ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। শিলিগুড়িতে ৬০.৬ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। কালিম্পঙে ৩৭.০ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। শুধুমাত্র মালদহে বৃষ্টি হয়নি। এমন ভারী বৃষ্টি চলবে শনিবার পর্যন্ত। এর জেরে উত্তরবঙ্গের পার্বত্য এলাকায় ধস ও নিচু এলাকা প্লাবিত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

পচামড়াজাত পণ্যের ফ্যাশনের দুনিয়ায় উজ্জ্বল তাঁর নাম, মুখোমুখি দশভূজা তাসলিমা মিজি।