স্টাফ রিপোর্টার , কলকাতা : রবিবার থেকে মঙ্গলবার পর্যন্ত টানা বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। কলকাতা-সহ দক্ষিণবঙ্গের জেলাগুলোতে আগামী তিন দিন এই বৃষ্টির পরিস্থিতি জারি থাকবে বলেজা নিয়েছে হাওয়া অফিস। কোথাও কোথাও ঝোড়ো হাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে তাই সেই সতর্কতা দেওয়া হয়েছে আলিপুর আবহাওয়া দফতর থেকে।

উত্তর বঙ্গোপসাগরে তৈরি হওয়া নিম্নচাপ রবিবার আরও শক্তিশালী হয়ে উঠেছে। ফলে শনিবার দুপুর থেকেই কলকাতা এবং দক্ষিণবঙ্গের বেশিরভাগ জেলাগুলিতে দফায় দফায় প্রচুর বৃষ্টি হয়েছে। রবিবার বৃষ্টির মাত্রা আরও বাড়বে বলে আভাস আবহাওয়া দফতর। এই দিন তিনেক মৎসজীবীদের সমুদ্রে যেতে নিষেধ করা হয়েছে।
আলিপুর আবহাওয়া দফতর সূত্রে জানানো হয়েছে দুই ২৪ পরগনা, দুই মেদিনীপুর, হাওড়া, ঝাড়গ্রামে বৃষ্টির পরিমাণ সব থেকে বেশি হবে। কলকাতার বাসিন্দারাও বৃষ্টি পাবে। এমনই জানাচ্ছেন আবহাওয়াবিদরা।

আজ রবিবার সকাল থেকেই যথারীতি কলকাতার আকাশ মেঘলা। বৃষ্টি হওয়ার সম্ভবনা রয়েছে। কাল দুপুর থেকে এখনও পর্যন্ত কলকাতায় ১.৯ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ২৮ থেকে নেমে সকালে ২৬.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস হয়েছে যা স্বাভাবিক। আপেক্ষিক আর্দ্রতা স্বাভাবিকভাবেই ৯০ এর উপরে রয়েছে। সর্বোচ্চ আর্দ্রতার পরিমাণ ৯৪ শতাংশ সর্বনিম্ন ৫৯ শতাংশ। কলকাতা ও পার্শ্ববর্তী এলাকার মধ্যে শনিবার বেশী বৃষ্টি হয়েছে বেহালাতে। বিভিন্ন জায়গা জলমগ্ন হয়ে যায়।

নির্দিষ্ট সময়ের অনেক পরে রাজ্যে বর্ষার আগমন ঘটেছে। দক্ষিণবঙ্গে ৮ জুনের পরিবর্তে ২১ জুন মৌসুমী বায়ু প্রবেশ করেছিল। কিন্তু মৌসুমী বায়ু দুর্বল হওয়ায়, ঠিক মতো বৃষ্টি হয়নি এত দিন। দুর্বল মৌসুমী বায়ুর প্রভাবে এতদিন দক্ষিণবঙ্গে বর্ষার যে খরা চলছিল, তার থেকে অনেকটাই মুক্তি মিলছে দক্ষিণের অন্যান্য অঞ্চলগুলিতেও।

কলকাতায় বৃষ্টির ঘাটতি (১-২৮ জুন) প্রায় ৬৮ শতাংশ। একই ভাবে দক্ষিণ ২৪ পরগনায় ৬০, উত্তর ২৪ পরগনায় ৭৫, হাওড়ায় ৬৫, পূর্ব মেদিনীপুরে ৪৭ এবং পশ্চিম মেদিনীপুরে ৪৬ শতাংশ বৃষ্টির ঘাটতি রয়েছে। দক্ষিণের সব জেলাতেই কম বেশী একই পরিস্থিতি। তিন দিনের বৃষ্টি সেই ঘাটতিকে কতটা মেটাতে পারে সেদিকে নজর থাকবে হাওয়া অফিসের। উত্তরবঙ্গের জন্যই সুখবর যে বৃষ্টির আতঙ্ক অন্তত তিন-চারদিন তাদের সইতে হচ্ছে না।