ভোপাল: বৃষ্টিতে কার্যত নাজেহাল এবং একইসঙ্গে স্তব্ধ মধ্যপ্রদেশ৷ ভোপালের আবহাওয়া অফিস থেকে ভারী বৃষ্টিপাতের পূর্বাভাস আগেই দিয়েছিল৷ শুক্রবার সকাল পর্যন্ত এই পরিস্থিতি চলতে পারে বলে জানানো হয়৷ একদিকে বৃষ্টি, অন্যদিকে জলস্তর বেড়েছে নর্মদা নদীতে৷ ফলে প্রায় ১০০ বাসিন্দাকে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে৷ ড্যামের ব্যাকওয়াটারের জলস্তরও বাড়ছে৷ প্রায় বন্যার মতো পরিস্থিতি৷ মুলতানি এলাকায় তাপ্তি নদী উপচে পড়ায় এর তীরবর্তী বহু মন্দির ভেসে গিয়েছে৷

এসবের মাঝেই বৃহস্পতিবার এক মহিলা জলের তোড়ে ভেসে যায় বলে জানা যায়৷ ৩০ বছর বয়সী সুম্মো বাই নাম তার৷ তাকে বাঁচাতে দুই যুবক গেলে তারাও জলে আটকে পড়ে৷ পরে গ্রামবাসীরা তাদের উদ্ধার করে৷
বারওয়ানির কালেক্টর অমিত তোমার এক সংবাদ সংস্থাকে জানান, রাজঘাট গ্রামে নমর্দার জলস্তর বেড়ে ১২৮.৯০ মিটার হয়েছে৷ মূলত ডেঞ্জার মার্ক হিসেবে ১২৩.২৮ মিটার ধরা হয়৷ তাই বিপদের আশঙ্কা করেই গ্রাম থেকে বাসিন্দাদের নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে৷

এদিকে, গত শুক্রবার রাত থেকে অতিবৃষ্টির জেরে মুম্বইসহ সংলগ্ন নিচু এলাকায় জল জমেছে। গত শনিবার অনবরত বৃষ্টি হয়েছে। যার জেরে রাস্তা থেকে ট্রেনের লাইনে জল জমেছে। ফলে যাতায়াত ব্যবস্থা ব্যাহত হয়েছে অনেকটাই। বাতিল করা হয়েছে একাধিক ট্রেন। এমনকি বহু ট্রেনও ঘুরিয়ে দেওয়া হয়েছে।

মুম্বইয়ের সমস্ত স্কুল-কলেজে ছুটি ঘোষণা করে দেওয়া হয়। বৃহন্মুম্বই মিউনিসিপ্যাল কর্পোরেশন মুম্বইয়ের সমস্ত স্কুল-কলেজ বন্ধ রাখার নির্দেশ দেয়। কারণ লাগাতার বৃষ্টিতে শহরের বিভিন্ন রাস্তায় হাঁটু সমান জল দাঁড়িয়ে গিয়েছে। এই পরিস্থিতিতে রাস্তায় বের হলে যে কোনও ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটে যেতে পারে বলে আশঙ্কা।

অন্যদিকে, বেশ কিছু সরকারি অফিস খোলা রয়েছে আজ। যেগুলি জরুরি পরিষেবা দেয় তেমন সরকারি দফতরগুলিতে কষ্ট করেই সরকারি কর্মীরা যাচ্ছেন। খুব প্রয়োজন না হলে বেসরকারি অফিসগুলিও বন্ধ রয়েছে মুম্বইতে।