কলকাতা: প্রবল বৃষ্টিতে ভাসল কলকাতা ও তার আশেপাশের অঞ্চল। মঙ্গলবার সকাল থেকেই শুরু হয় ব্যাপক বৃষ্টি। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে আকাশ কালো হয়ে আসে।

টানা প্রায় ঘণ্টা দুয়েকের বৃষ্টিতে রাস্তা ঘাট জলে ভেসে যায়। এটি নিম্নচাপের বৃষ্টি বলে জানা গিয়েছে। সকাল থেকেই বৃষ্টি শুরু হলেও তাপমাত্রা খুব একটা কম ছিল না। তবে প্রবল বৃষ্টিতে আবহাওয়া কিছুটা স্বস্তিদায়ক হয়েছে।

মঙ্গলবার শহরের সকালের তাপমাত্রা ছিল ২৭.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস, যা স্বাভাবিকের থেকে এক ডিগ্রি বেশি। সোমবার যে প্রবল গরম ছিল তা স্পষ্ট করেছে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা, যা পৌঁছে গিয়েছিল ৩৭.১ ডিগ্রি সেলসিয়াসে, স্বাভাবিকের থেকে যা পাঁচ ডিগ্রি বেশি ছিল। আপেক্ষিক আর্দ্রতার পরিমান স্বাভাবিকভাবেই কমেনি। সর্বোচ্চ ৯৭ শতাংশ, সর্বনিম্ন ৫৫ শতাংশ। এখনও পর্যন্ত শহরে বৃষ্টি হয়েছে ২১.৮ মিলিমিটার, দমদমে ১৯.৭ ও সল্টলেকে ৪.৭ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে।

বঙ্গোপসাগরে নিম্নচাপের জেরে দক্ষিণবঙ্গে বৃষ্টি শুরু হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। তবে এবার মৌসুমি অক্ষরেখাও হিমালয়ের পাদদেশ থেকে দক্ষিণে সম্পূর্ণ সরে আসতে পারে। এমনটাই জানাচ্ছে হাওয়া অফিস। মৌসুমি অক্ষরেখার জন্য উত্তরবঙ্গে প্রবল বৃষ্টি হলেও দক্ষিণবঙ্গে বর্ষা ‘ব’টিও ছিল না। ভ্যাপসা গরম জুন মাসের শেষ থেকে সারা জুলাই ভুগিয়েছে দক্ষিণবঙ্গবাসীকে। সেই পরিস্থিতি পরিবর্তন হতে পারে নয়া নিম্নচাপ ও মৌসুমি অক্ষরেখা দক্ষিণের দিকে সম্পূর্ণ সরলে।

এদিকে ২ অগস্ট পর্যন্ত বর্ষায় উত্তরবঙ্গে ৪১% অতিরিক্ত বৃষ্টি হয়েছে। যদিও দক্ষিণবঙ্গে ঘাটতি ৭%। সবচেয়ে কম বৃষ্টি হয়েছে পূর্ব মেদিনীপুর ও দক্ষিণ ২৪ পরগনায়। হাওয়া অফিস জানিয়েছে, মঙ্গল ও বুধবার কলকাতার আকাশ মেঘাচ্ছন্ন থাকবে। মঙ্গলবার ভারী বৃষ্টি হতে পারে পশ্চিম মেদিনীপুর, ঝাড়গ্রাম ও বাঁকুড়ায়। বুধবার ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে পুরুলিয়া, পূর্ব ও পশ্টিম বর্ধমান, উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগনা, হাওড়া ও হুগলিতে। নিম্নচাপের প্রভাবে বেশি বৃষ্টি হবে ওডিশায়।

পপ্রশ্ন অনেক: একাদশ পর্ব

লকডাউনে গৃহবন্দি শিশুরা। অভিভাবকদের জন্য টিপস দিচ্ছেন মনোরোগ বিশেষজ্ঞ।