কলকাতা:  হু হু করে নামতে শুরু করেছে তাপমাত্রা। জাঁকিয়ে ঠান্ডা। আগামী ৪৮ ঘন্টা এমনই জাঁকিয়ে ঠান্ডা অনুভূত হবে। এমনটাই জানাচ্ছে আলিপুর হাওয়া অফিস। একই সঙ্গে হাওয়া অফিসের পূর্বাভাস, আগামী সোমবার থেকে দক্ষিণবঙ্গে বৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে। তিনদিন বৃষ্টির পরিস্থিতি থাকতে পারে মনে করছেন আবহাওয়াবিদরা।

চলতি শীত মরশুমে পরপর পশ্চিমী ঝঞ্ঝার কবলে পড়েছে রাজ্য। একদিকে কাশ্মীর সহ উত্তর ভারতে তুষারপাত হওয়ায়, তার জেরে হু হু করে উত্তরে বাতাস হাজির হয়েছে রাজ্যে। অন্যদিকে তেমনই ঝঞ্ঝার প্রভাবে তা কখনও কখনও থমকেও গিয়েছে। উত্তুরে হাওয়ার পরিবর্তে দক্ষিণবঙ্গে পুবালি বাতাস ঢুকেছে। সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে আসা জলীয় বাষ্প বৃষ্টির পরিস্থিতি তৈরি করেছে।

আর এই পরিস্থিতিতে ফের একবার বাংলায় বৃষ্টির পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে। এর আগেও একাধিক বার এই পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে বাংলায়। পশ্চিমী ঝঞ্ঝা যেখানে উত্তর ভারত হয়ে ক্রমশ এগিয়ে এসে যখন উত্তর-পূর্ব ভারতে পৌঁছেছে, তখন উত্তরবঙ্গে, বিশেষত পাহাড়ি জেলাগুলিতে বৃষ্টি হয়েছে ভালোই। দিন দু’য়েক কলকাতা সহ দক্ষিণবঙ্গে মোটামুটি ভালো ঠান্ডা থাকার পর সেই পশ্চিমী ঝঞ্ঝার কবলে রাজ্য।

আবহাওয়া দফতরের পূর্বাঞ্চলীয় ডেপুটি ডিরেক্টর জেনারেল সঞ্জীব বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন, রবিবার মেঘমুক্ত আকাশ থাকবে এবং তাপমাত্রা নামতে শুরু করবে। তবে এক ধাক্কায় পারদ নামবে না বলেই জানিয়েছেন সঞ্জীববাবু। তাঁর মতে, ধাপে ধাপে তিন থেকে চার ডিগ্রি তাপমাত্রা নামবে দক্ষিণবঙ্গে। অন্যদিকে আগামী ৪৮ ঘন্টায় পরিস্থিতি বদলাবে বলে পূর্বাভাস সঞ্জীববাবুর।

তিনি বলেন, ২৮ থেকে ৩০ জানুয়ারি পর্যন্ত আমরা দক্ষিবঙ্গে বৃষ্টির আশা করছি। এর কারণ মূলত পশ্চিমী ঝঞ্ঝা। পাশাপাশি বঙ্গোপসাগরে একটি বিপরীত ঘূর্ণাবর্তের সৃষ্টি হতে চলেছে। তা তৈরি হলে বঙ্গোপসাগর থেকে প্রচুর পরিমাণে জলীয় বাষ্পপূর্ণ বাতাস উঠে আসবে। অন্যদিকে, উপর থেকে আসা পশ্চিমা বায়ুর সঙ্গে মিলেমিশে দক্ষিণবঙ্গে বৃষ্টির পরিস্থিতি তৈরি হবে।