স্টাফ রিপোর্টার , কলকাতা : হাওয়া অফিস আগেই জানিয়েছিল আগামী কয়েক দিন প্রবল ঝড় বৃষ্টি হতে পারে। সেই পূর্বাভাস অনুযায়ী সোমবার থেকেই শুরু হয়ে গিয়েছে দুর্যোগ। আভাস মিলেছিল শনিবারের ৫৬ কিলোমিটারের প্রথম কালবৈশাখীতে। এবার শহর পেয়েছে মরসুমের দ্বিতীয় কালবৈশাখী। সঙ্গে রাতভর তুমুল বৃষ্টি। যা এখনও চলছে সমান তালে। ফল, স্বাভাবিকের অনেক নীচে পারদ।

গত সপ্তাহে গরমে নাজেহাল কলকাতাবাসী বৃষ্টির খোঁজ করছিল। এবার শুরু হয়েছে। হাওয়া অফিস জানাচ্ছে সোমবার রাত ৮.৩০ থেকে আলিপুর অঞ্চলে ৩০ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। সকাল ৬টা থেকে থেকে এই প্রতিবেদন প্রকাশ হওয়া পর্যন্ত বৃষ্টি হয়েছে ২০ মিলিমিটার। তাপমাত্রা সকালেই স্বাভাবিকের থেকে ৬ ডিগ্রি নীচে। ২০.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৩৪.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস ছিল সোমবার। আজ তা কমবে তা স্পষ্ট। নেমে আসতে পারে চার ডিগ্রি কম ৩০ থেকে ৩১ ডিগ্রির আশেপাশে। শনিবার ৫৬ কিলোমিটার বেগে ৬.২৩ থেকে ৬.২৪ মিনিট পর্যন্ত ঝড় হয় কলকাতায়, যা কালবৈশাখীর তকমা পেয়েছে। মঙ্গলবার শহর মরসুমের দ্বিতীয় কালবৈশাখী পায়, গতিবেগ ছিল ঘণ্টায় ৪৬ কিলোমিটার।

ওই দিন শনিবার শহরের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ২৭.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। যা স্বাভাবিকের থেকে দুই ডিগ্রি বেশি। সপ্তাহের মাঝে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা বাড়লেও গত কয়েকদিন সকালবেলা থেকে যে পরিমাণ অস্বস্তিকর গরম হচ্ছিল তা তুলনামূলকভাবে কমেছিল। শুক্রবার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ২৬.১ ডিগ্রি সেলসিয়াস, যা স্বাভাবিকের থেকে এক ডিগ্রি বেশি ছিল। শনিবার ২৮ ছুঁই ছুঁই হয়ে যায়। তারপর ঝড় ঝাপটায় সকাল সকাল পারদ নেমে ২০তে। শহরের বাতাসে জ্বলীয় বাষ্পের পরিমাণ সর্বোচ্চ ৯১ , সর্বনিম্ন ৬০ শতাংশ।

দমদমে সকালের তাপমাত্রা ২৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস, বৃষ্টি হয়েছে ৩৩ মিলিমিটার। এই বৃষ্টি বাদলাতেও সল্টলেকে যথারীতি সকালেই পারদ পৌঁছে গিয়েছে ৩১ ডিগ্রি সেলসিয়াস। ওই অঞ্চলে বৃষ্টির খবর নেই। দুই অঞ্চলে সকালে আপক্ষিক আর্দ্রতার পরিমাণ ৮৪ ও ৭৪ শতাংশ।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ