নয়াদিল্লি: চাকুরী প্রাথীদের জন্যে সুখবর।নর্থ-ইস্ট ফ্রন্টিয়ার রেলে প্রকাশ হয়েছে কর্মী নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি। ইলেকট্রিকাল বিভাগের টিআরডি উইং-এ জুনিয়র ইঞ্জিনিয়ার, টেকনিশিয়ান ও হেল্পার পদে করা হবে নিয়োগ। সব মিলিয়ে ৩৭০টি পদে নিয়োগ করা হবে বলে জানা গিয়েছে।

জুনিয়র ইঞ্জিনিয়ার পদে ২০, টেকনিশিয়ান পদে ১৫০ ও হেল্পার পদে ২০০ জনকে নিয়োগ করা হবে। তবে পরবর্তী সময়ে এই সংখ্যা বাড়তে বা কমতে পারে। সম্প্রতি এমন একটি নির্দেশিকা জারি করা করেছে নর্থ-ইস্ট ফ্রন্টিয়ার রেলের তরফ থেকে।

আবেদনকারীদের টেকনিকাল যোগ্যতা ও কাজের অভিজ্ঞতার ভিত্তিতে বেছে নেওয়া হবে এবং এরপর তাঁদের নিয়োগ করা হবে। আবেদনপত্রে নিজের নাম, জন্ম তারিখ, বাবার নাম, নিজের কমিউনিটি (এসসি/এসটি/ওবিসি), বর্তমান পদ, পে ম্যাট্রিক্স সহ নিজের শিক্ষাগত যোগ্যতা, টেকনিকাল যোগ্যতা সহ সেই পদে কতদিন রয়েছেন সেই সংক্রান্ত সমস্ত তথ্য উল্লেখ করতে হবে। এছাড়াও কম্পিউটারের জ্ঞান আছে কিনা বা শারীরিক কোন প্রতিবন্ধকতা থাকলে তাও উল্লেখ করতে হবে আবেদনপত্রে।

আবেদনপত্র পাঠাতে হবে নর্থ-ইস্ট ফ্রন্টিয়ার রেলের প্রিন্সিপাল চিফ পার্সোনেল অফিসারের কার্যালয়ে। আবেদনপত্র গ্রহণের ক্ষেত্রে পূর্ণ স্বাধীনতা থাকবে নর্থ-ইস্ট ফ্রন্টিয়ার রেলের GM(P)/MLG-র।আবেদনপত্র গ্রহণ হওয়া ও নিয়োগ পত্র/বদলির নির্দেশ পাওয়ার পর সেটাই চূড়ান্ত বলে ধার্য করা হবে এবং কোন কর্মী যদি তাঁর পুরনো কর্মস্থলে থাকতে চান, তাহলে তা কোনও মতেই গ্রাহ্য করা হবে না।

জুনিয়ার ইঞ্জিনিয়ারদের পে লেভেল- ৬, টেকনিশিয়ানদের পে লেভেল- ২ ও হেল্পারদের পে লেভেল- ১ অনুযায়ী বেতন দেওয়া হবে। চূড়ান্ত বাছাই পর্বে যে সমস্ত চাকরিপ্রার্থীদের নিয়োগ করা হবে, তাঁদের নর্থ-ইস্ট ফ্রন্টিয়ার রেলের কোন একটি ডিভিশনে নিয়োগ করা হবে।

আগামী ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত আবেদন করতে পারবেন। আবেদন প্রক্রিয়া সম্বন্ধে বিস্তারিত তথ্য নর্থ-ইস্ট ফ্রন্টিয়ার রেলের ওয়েবসাইট nfr.indianrailways.gov.in -এ পেয়ে যাবেন। কেবলমাত্র ভারতীয় রেলের বিভিন্ন জোনে এই সংক্রান্ত পদে কর্মরত ব্যক্তিরা তাঁদের আবেদনপত্র জমা করতে পারবেন বলে বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়েছে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.