নয়াদিল্লি: দীর্ঘ ৯২ বছরে ধরে চলার পর ইতি ঘটেছিল রেল বাজেটের৷ ২০১৭ সাল থেকে আর পৃথকভাবে সংসদে পেশ হয় না রেল বাজেট৷ সাধারণ বাজেটের সঙ্গেই জুড়ে গিয়েছে রেল বাজেট৷ ২০১৬ সালের ২৫ ডিসেম্বর সুরেশ প্রভু শেষ রেল বাজেট পেশ করেছিলেন৷

সাধারণ ফেব্রুয়ারি মাসের শেষ দিনে সাধারণ বাজেট পেশ করা হত। আর তার দু’দিন আগে রেল বাজেট পেশ করতে দেখা যেত ৷ তবে যে সব বছরে লোকসভা নির্বাচন থাকত সেই সব বছরে একবার অন্তর্বতী রেল বাজেট নির্বাচনের পর পূণাঙ্গ রেল বাজেট পেশের চল ছিল।

১৮৩২ সালে প্রথম ভারতে রেল ব্যবস্থা প্রবর্তনের পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়। ১৮৪৪ সালে ভারতের গভর্নর-জেনারেল লর্ড হার্ডিঞ্জ বেসরকারি সংস্থাগুলিকে ভারতে রেলপথ স্থাপন করার অনুমতি দেন। ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি (এবং পরবর্তীকালে ব্রিটিশ সরকার) নতুন নতুন রেলওয়ে কোম্পানিকে ভারতে রেলপথ স্থাপনের ব্যাপারে উৎসাহ দিতে থাকেন। এরফলে ১৮৫১ সালের ২২ ডিসেম্বর ভারতে প্রথম রেল চালু হয়। রুরকিতে স্থানীয় একটি খালের নির্মাণকার্যের জন্য মালপত্র আনা নেওয়ার করার জন্য এই ট্রেনটি চালু করা হয়েছিল। তার দেড় বছর বাদে, ১৮৫৩ সালের ১৬ এপ্রিল বোম্বাইয থেকে থানের মধ্যে প্রথম যাত্রীবাহী ট্রেন চলে।

এদিকে ১৮৫৪ সালে ভারতের তৎকালীন গভর্নর-জেনারেল লর্ড ডালহৌসি ভারতের প্রধান অঞ্চলগুলিকে জুড়ে একটি ভারবাহী রেলপথ নির্মাণের পরিকল্পনা করেন। সরকারি সুরক্ষা ব্যবস্থায় উৎসাহিত হয়ে এই ক্ষেত্রে অর্থ লগ্নি হয় এবং একাধিক নতুন রেল কোম্পানি স্থাপিত হয়। তারই জেরে এ দেশে রেল ব্যবস্থার দ্রুত বিস্তার ঘটতে থাকে। বিংশ শতাব্দীর শুরুতে ভারতে ব্রড, ন্যারো ও মিটার গেজ নেটওয়ার্কে একাধিক মালিকানা ও ব্যবস্থাপনায় বিভিন্ন রেল পরিষেবা চালু হয়ে যায়। প্রথম বিশ্বযুদ্ধের শেষে ভারতে রেল ব্যবস্থা বিশেষভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়। ১৯২৩ সালে জিআইপিআর ও ইআইআর কোম্পানি দুটির রাষ্ট্রায়ত্ত্বকরণ করা হয়।

১৯২৪ সালের অকওয়ার্থ কমিটির সুপারিশকৃত সেপারেশন কনভেনশন অনুযায়ী কেন্দ্রীয় রেলমন্ত্রী কেন্দ্রীয় বাজেট পেশ করার দুই দিন আগে সংসদে রেলবাজেট পেশ করেন। রেলবাজেট সংসদে পৃথকভাবে পেশ করা হলেও এই বাজেটের রাজস্ব-প্রাপ্তি ও ব্যয়ের তথ্যাদি সাধারণ বাজেটেও দেখানো হয়ে থাকে। কারণ এগুলি ভারত সরকারের সামগ্রিক রাজস্ব-প্রাপ্তি ও ব্যয়ের অপরিহার্য অংশ। এই নথিটি রেলের পূর্ববর্তী বছরের কাজকর্মের ও বর্তমান বছরের পরিকল্পনা তালিকার উদ্বর্ত-পত্রও বটে। তবে রেলের নীতিনির্ধারণ ও সামগ্রিক নিয়ন্ত্রণের দায়িত্ব রয়েছে রেলওয়ে বোর্ডের উপর। এই বোর্ড একজন চেয়ারম্যান, অর্থ কমিশনার এবং ট্র্যাফিক, ইঞ্জিনিয়ারিং, প্রযুক্তি, বিদ্যুত ও কর্মীবিভাগের অন্যান্য কার্যকরী সদস্যদের নিয়ে গঠিত।

জন মাথাই- স্বাধীন ভারতে প্রথ্ম রেল বাজেট পেশ করছিলেন জন মাথাই৷যদিও প্রথম রেল বাজেট পেশ করলেও তিনি রেল মন্ত্রকের আলাদা করে দায়িত্বে ছিলেন না৷ ৷ পরবর্তী কালে রেলমন্ত্রী হয়েছেন- লাল বাহাদূর শাস্ত্রী, জগজীবন রাম,গুলজারিলাল নন্দ, কমলাপতি ত্রিপাঠি, মধু দন্ডবতে, গণিখান চৌধুরী, মাধবরাও সিন্ধিয়া,জর্জ ফার্ন্ডাডেজ,নীতিশ কুমার , লালু প্রসাদ যাদব, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রমুখ নেতানেত্রীরা৷