কলকাতাঃ উত্তর কলকাতা৷ এক সময় ছিল কংগ্রেসের গড় থাকলেও এখন তা তৃণমূলের৷ ২০০৪ সাল পর্যন্ত এই কেন্দ্রটি দুটি ভাগে বিভক্ত ছিল৷ কলকাতা উত্তর-পূর্ব ও কলকাতা উত্তর পশ্চিম৷ দুটি কেন্দ্রই সবুজ দুর্গ হিসেবে পরিচিত ছিল৷

২০০৯ সালে উত্তর-পূর্ব ও কলকাতা উত্তর পশ্চিম, এই কেন্দ্র দুটি যুক্ত হয়ে তৈরি হয় কলকাতা উত্তর। কলকাতা উত্তর হওয়ার পরও এই কেন্দ্র থেকে জিতে দু-দুবার সংসদে গিয়েছেন সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়। ২০০৯-এর পর ২০১৪ সালেও তিনি জয়ী হন। তৃণমূলের লোকসভার দলনেতা হন।

কলকাতা উত্তর লোকসভা কেন্দ্রের মধ্যে সাতটি বিধানসভা কেন্দ্র হল- চৌরঙ্গী, এন্টালি, বেলেঘাটা, জোড়াসাঁকো, শ্যামপুকুর, মানিকতলা ও কাশীপুর-বেলগাছিয়া। এই সাতটি কেন্দ্রই কলকাতা জেলার অন্তর্গত।

২০১৪-র নির্বাচনে সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায় পেয়েছিলেন ৩,৪৩,৬৮৭ ভোট৷ নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিজেপির রাহুল সিনহার প্রাপ্ত ভোট ছিল ২,৪৭,৪৬১। সিপিএমের রূপা বাগচি পান ১,৯৬,৫৪৯ ভোট। কংগ্রেসের সোমেন মিত্রের প্রাপ্ত ভোট ১,৩০,৭৮৩।

এবারও ঘাসফুলের টিকিটে লড়ছেন সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়৷ বিজেপির প্রার্থী হয়েছেন রাহুল সিনহা। সিপিএমের প্রার্থী হয়েছেন কণীনিকা বসু ঘোষ। কংগ্রেস এই কেন্দ্রে প্রার্থী করেছে সৈয়দ শহিদ ইমামকে। গতবার সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায় বিজেপির রাহুল সিনহাকে ৯৬ হাজার ২২৬ ভোটে পরাজিত করলেও প্রায় ১৭% ভোট কমেছিল সুদীপবাবুর।

সেবার গেরুয়া শিবিরের ভোট বেড়েছিল প্রায় ২১%। রোজভ্যালি কাণ্ডে সুদীপের চারমাসের হাজতবাস ও গতবারের ভোটবৃদ্ধিই এবার আশা বাড়াচ্ছে রাহুল সিনহার৷ কংগ্রেসের আশা, এবার তারাও ভাল সংখ্যায় সংখ্যালঘু ভোট টানতে পারবে৷তৃণমূল জেতার ব্যাপারে প্রত্যয়ী হলেও এই দুটি বিষয়ই তাদেরকে চাপে রাখছে৷