ফাইল ছবি

স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: রাজ্যপালের নিরাপত্তায় সিআরপিএফ মোতায়েন নিয়ে কেন্দ্রের উপর ভীষণ ক্ষুব্ধ রাজ্য সরকার৷ কেন কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েন করা হল তা জানতে চেয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকে চিঠি দিয়েছে নবান্ন। রাজ্য সরকারের এই পদক্ষেপকে কটাক্ষ করলেন বিজেপির জাতীয় সম্পাদক রাহুল সিনহা৷ তাঁর কথায়, ”রাজ্য পুলিশ তো তৃণমূলের ক্যাডারে পরিণত হয়েছে। তাদের হাতে কি রাজ্যপাল সুরক্ষিত?” এর পাশাপাশি রাহুল বলেন, ”রাজ্যপালের নিরাপত্তায় সরকার কী ব্যবস্থা সেটা বলতে হবে। কেন্দ্রের সঙ্গে কথা বলুক সরকার।”

বিজেপির রাজ্য নেতৃত্বের একাংশের দাবি, রাজ্যপালকে পুলিশি নিরাপত্তা দেওয়ার নামে আসলে রাজ্য সরকার তাঁর গতিবিধি নিয়ন্ত্রণ করতে চাইছে৷ রাজ্যপালের উপরে সর্ব ক্ষণ নজরদারি চালানোর সুযোগ হাতছাড়া হয়ে যাবে বলেই কেন্দ্রের সিদ্ধান্ত মেনে নিতে রাজ্য সরকারের অসুবিধা হচ্ছে।

পশ্চিমবঙ্গের রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়ের নিরাপত্তার ভার যে আর রাজ্যের পুলিশের হাতে থাকছে না, সে কথা ১৭ অক্টোবর জানা গিয়েছিল। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের তরফে ওই দিনই রাজ্যকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছিল যে, এ বার থেকে ধনখড়ের নিরাপত্তায় মোতায়েন থাকবে সিআরপিএফ। রাজ্যপালের নিরাপত্তা নিয়ে কটাক্ষ করেছিলেন মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায়৷ তিনি বলেছিলেন, “রাজ্যকে ‘ওভারটেক’ করে রাজ্যপাল কেন্দ্রের দ্বারস্থ হয়েছেন। গত ৫০ বছরে আর কোনও রাজ্যপালকে নিরাপত্তার অভাবে ভুগছেন বলে বলতে শুনিনি৷”

সুব্রত মুখোপাধ্যায়কে নিশানা করে রাজ্যপাল পরে বলেন, “নিরাপত্তা ইস্যুতে কিছু বলব না। তবে রাজ্যের এক শীর্ষ মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায় যে মন্তব্য করেছেন সংবাদমাধ্যমে, তা একজন মন্ত্রী হিসেবে ঠিক করেননি। আগে তথ্য যাচাই করে কথা বলুন। তাঁদের হাতজোড় করে বলছি, আগে সবটা জেনে তবেই মন্তব্য করুন।”

এদিকে, রাজ্য সরকারের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রককে যে চিঠি দেওয়া হয়েছে তাতে উল্লেখ করা হয়েছে রাজ্যপালের নিরাপত্তায় কোনও ফাঁক রাখা হয়নি৷ এমনকি আধাসেনা মোতায়েনের সিদ্ধান্ত কেন্দ্রকে পুনর্বিবেচনা করতেও বলা হয়েছে। তৃণমূল মহাসচিব তথা রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় বুধবারও সমালোচনা করেছেন রাজ্যপালের। তিনি বলেন, এমন রাজ্যপাল আগে কখনও দেখিনি৷