স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা : মুকুল রায় বিজেপিতে চলে আসায় অস্তিত্ব সংকটে ভুগছেন রাহুল সিনহা৷ তাই বিজেপির প্রাক্তন রাজ্য সভাপতি যোগদান করতে চান তৃণমূল কংগ্রেসে৷ সেই কারণেই বৃহস্পতিবার তৃণমূল সাংসদ সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়ের বাড়িতে যান তিনি৷ বৃহস্পতিবার থেকে এই খবর ছড়িয়ে পড়েছিল৷ এ নিয়ে কয়েকটি সংবাদমাধ্যম খবরও প্রকাশিত করে৷ আর তার জেরে এবার পুলিশের দ্বারস্থ হলেন বিজেপির কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক রাহুল সিনহা৷ এফআইআর করলেন জোড়াসাঁকো থানায়৷ তাঁর অভিযোগ, এ নিয়ে মিথ্যা সংবাদ পরিবেশন করা হয়েছে৷ আর এটা করা হয়েছে, তাঁর ভাবমূর্তি কালিমালিপ্ত করতে৷

প্রসঙ্গত, সোমবার যখন রাজ্য বিজেপির সদর দফতরে আসেন মুকুল রায়, তখন দলের অনেক নেতাই উপস্থিত ছিলেন৷ কিন্তু সেখানে ছিলেন না রাহুল সিনহা৷ ফলে কেন তিনি অনুপস্থিত, তা নিয়ে সেদিন থেকেই জল্পনা চলছিল৷ কারও কারও বক্তব্য ছিল, মুকুল রায়কে দলে নেওয়া রাহুল সিনহা খুশি হননি, তাই তিনি অনুপস্থিত ছিলেন৷ আবার কেউ কেউ বলতে থাকেন, মুকুল রায় বিজেপিতে আসায় রাহুল সিনহা-সহ একাধিক নেতার গুরুত্ব কমে গেল৷ তাই তিনি ও আরও কয়েকজন নেতা বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে চলে যেতে পারেন৷ সেই সম্ভাবনায় মঙ্গলবার রাতে ইন্ধন দেন বোলপুরের সাংসদ তৃণমূলের অনুপম হাজরা৷ তিনি জানিয়েদেন, রাহুলের তৃণমূলে আসার সম্ভাবনা উড়িয়ে দেওয়া যায় না৷

এ নিয়ে জল্পনা যখন চলছে, তখনই সামনে আসে রাহুল সিনহার সঙ্গে উত্তর কলকাতার তৃণমূল সাংসদ সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়ের বৈঠকের খবর৷ বৃহস্পতিবার সকালে গুজব বলে পুরোটাই উড়িয়ে দিয়েছিলেন তিনি৷ বলেছিলেন, ‘‘আমার এত অধঃপতন হয়নি যে আমি ওই স্তরের নেতার সঙ্গে দেখা করতে যাব৷ ওরা আমার বাড়ির সামনে দাঁড়িয়ে থাকে কথা বলার জন্য৷’’ পাশাপাশি তিনি বলেছিলেন, ‘‘এটা তদন্ত করে দেখতে হবে তৃণমূল করেছে, নাকি অন্য কেউ৷’’ তার পরও কয়েকটি সংবাদমাধ্যমে তাঁর ও সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়ের মধ্যে বৈঠক হয়েছে সংবাদ প্রকাশিত হয়৷ আর তা নিয়েই ক্ষুব্ধ বিজেপির কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক রাহুল সিনহা৷ তাই এ নিয়ে সত্যিটা সামনে আনতেই তিনি পুলিশের দ্বারস্থ হয়েছেন৷