নয়াদিল্লি: আর তিন দিন বাকি লোকসভা নির্বাচনের৷ তারপরেই যুদ্ধ শুরু৷ সেদিকে নজর রেখেই একের পর এক প্রতিশ্রুতির বন্যা আসছে বিভিন্ন রাজনৈতিক দল থেকে৷ দিন কয়েক আগেই নির্বাচনী ইশতেহার প্রকাশ করেছে কংগ্রেস৷

এদিকে, সোমবার নিজের ফেসবুক পেজে কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী ঘোষণা করেন কংগ্রেস ক্ষমতায় এলে যে কোনও সরকারি চাকরির পরীক্ষা বা সরকারি কোনও পরীক্ষায় আবেদন মূল্য লাগবে না৷ অর্থাৎ বিনামূল্যে সরকারি চাকরির পরীক্ষা দেওয়া যাবে বলে জানান তিনি৷

আরও পড়ুন : শুধু মুসলিম নয়, পদ্ম চিহ্নে পড়ুক সব ধর্মের ভোট: আদিত্যনাথ

এই ইস্যুতে কংগ্রেসের নীতিও তুলে ধরেন তিনি৷ বলেন, জনস্বাস্থ্যের দিকে তাকিয়ে তাঁর দল নিয়ে আসবে স্বাস্থ্যের অধিকার৷ স্বাস্থ্য খাতে ব্যয়বরাদ্দ বাড়ানো হবে জিডিপির আরও তিন শতাংশ৷

তাঁর দল ক্ষমতায় এলে শিক্ষা ঋণের সুদ মকুব করা হবে বলে আগেই জানিয়েছিলেন রাহুল৷ এদিন তিনি বলেন ২০২০ সালের মার্চ মাসের মধ্যে কেন্দ্র ও বিভিন্ন সরকারি সংস্থায় যে ৪ লক্ষ শূণ্যপদ রয়েছে, তা ভরাবে কংগ্রেস৷ ইশতেহারে রাহুলের দাব ছিল, চাকরি আছে, তা সত্বেও দিতে ব্যর্থ হয়েছেন প্রধানমন্ত্রী মোদী। শিক্ষাক্ষেত্রে বরাদ্দ বাড়ানোর কথা বলেন রাহুল গান্ধী। পাশাপাশি, ৭২,০০০ টাকা দেওয়ার স্কিমের কথা উল্লেখ করা হয় কংগ্রেসের ইস্তেহারে। রাহুল গান্ধী বলেন, ‘বিজেপি পারেনি। কিন্তু আমরা দেখিয়ে দেব কীভাবে টাকা দেওয়া সম্ভব।’

আরও পড়ুন : বউ আর বালি নিয়ে ব্যস্ত বিজেপি প্রার্থী, বাঁকুড়ায় নির্বাচনী প্রচারে অভিষেক

কৃষকদের উন্নয়নে জোর দেওয়া হয় কংগ্রেসের ইশতেহারে৷ বলা হয়, কৃষকরা ঋণ দিতে না পারলে সেটা ক্রিমিনাল অফেন্স নয়, হবে সিভিল অফেন্স। ইশতেহার প্রকাশের মোড়কে কয়েকদিন আগেই দেশবাসীকে নুন্যতম আয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন তিনি৷ সাংবাদিক সম্মেলনে রাহুল বলেন, ‘‘মোদী ধনীদের টাকা দেয় কিন্তু কংগ্রেস গরিবদের টাকা দেবে৷৷’’