নয়াদিল্লি: আজ মনোনয়ন পেশ করবেন রাহুল গান্ধী৷ উত্তরপ্রদেশের আমেঠি থেকে কংগ্রেস প্রার্থী রাহুল৷ এদিন দুপুরে তাঁর মনোনয়ন পেশ করার কথা৷

মনোময়ন পেশের পাশাপাশি এদিন নিজের কেন্দ্র আমেঠিতে ৩ কিলোমিটার রোড শো-ও করবেন কংগ্রেস সভাপতি৷ এই ব়্যালি ঘিরে বিশাল জনসমাগম হবে বলে মনে করছেন রাজ্যের কংগ্রেস নেতৃত্ব৷ মুন্সীগঞ্জ দারপিপুর থেকে গাউরিগঞ্জ পর্যন্ত হবে এই রোড শো৷

চলতি মাসের ৪ তারিখ-ই কেরলের ওয়ানাড় থেকে মনোনয়ন পেশ করেন রাহুল গান্ধী৷ বিশাল রোড শোয়ের মাধ্যমে মনোময়ন জমা করতে যান কংগ্রেস সভাপতি৷ তারই পুররাবৃত্তি হবে বলে মনে করা হচ্ছে৷ এদিনও মনোনয়ন পেসের সময় দাদা রাহুলের সঙ্গে দেখা যাবে বোন ও দলের সাধারণ সম্পাদিকা প্রিয়াঙ্কা গান্ধীকে৷ প্রচারে থাকতে পারেন রবার্ট বঢরাও৷

আমেঠি কংগ্রেসের গড়৷ ২০০৪ সাল থেকে এই কেন্দ্রের সাংসদ রাহুল গান্ধী৷ এবারও প্রার্থী তিনি৷ বিরোধী জোট ক্ষমতায় এলে প্রধানমন্ত্রী কে হবেন তা স্পষ্ট নয়৷ তবে বিজেপি মনে করে রাহুল ছাড়া ‘পাপ্পু’ ছাড়া এক্ষেত্রে অন্য কারোর কথা ভাবা যায় না৷ তাই গেরুয়া শিবিরের নিশানায় তিনি৷ রাহুলকে বেগ দিতে এবারও আমেঠি কেন্দ্রে বিজেপি দাঁড় করিয়েছে স্মৃতি ইরানিকে৷

গতবারই স্মৃতি রাহুল গান্ধীর ভোটের ব্যবধান অনেকটাই কমিয়ে এনেছিলেন৷ হেরে গিয়েও আমেঠি ছাড়েননি তিনি৷ গত পাঁচ বছরে প্রায়ই সেখানে গিয়েছেন তিনি৷ মানুষের জন্য কাজ করেছেন৷ অন্যদিকে, কংগ্রেসকে বার্তা দিয়ে আমেঠি ও সোনিয়া গান্ধীর কেন্দ্র রায়বেরেলিতে প্রার্থী দেয়নি সপা বসপা জোট৷ ফলে লড়াই কিছুটা সহজ হয়েছে কংগ্রেসের৷ মোদী ম্যাজিকও অনেকটাই ফিকে গত পাঁচ বছরে৷ ফলে হাত শিবির মনে করছে আমেঠিতে ‘কংগ্রেস গড়ে’র সুনাম ধরে রাখাটা অসুবিধের হবে না৷

ফাইল ছবি

বুধবার ছেলের পর লক্ষ্মীবারে মনোনয়ন পেশ করবেন সোনিয়া গান্ধী৷ রায়বেরেলি থেকে কংগ্রেস প্রার্থী তিনি৷ তাঁর বিরুদ্ধে বিজেপি প্রার্থী দিনেশ প্রতাপ সিং৷ যাঁকে অবশ্য বিশেষ গুরুত্ব দোওয়া হচ্ছে না৷ ‘বুয়া-ভাতিজা’ জোট রায়রেলিতে প্রার্থী না দেওয়ায় লড়াই হবে হাত বনাম পদ্মের৷

পর পর দুদিন রাহুল ও সোনিয়ার মনোনয়ন পেশ মেগা ইভেন্ট হয়ে উঠতে চলেছেষ দলের দুই হেভিওয়েটের রোড শো, ব়্যালি ঘিরে উত্তরপ্রদেশের কংগ্রেস কর্মী, সমর্থকরা যে উজ্জীবিত হবেন তা বলার অপেক্ষা রাখে না৷ কিন্তু বিজেপি ও মায়া-অখিলেশ জোটের বিরুদ্ধে লড়ে সে রাজ্য থেকে শেষ পর্যন্ত কংগ্রেস কী আদৌ ভালো ফল করতে পারবে? প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে অতি বড় দলীয় কর্মীর মনেও৷