নয়াদিল্লি: রাফায়েল জেট মামলার পুনর্বিবেচনার আর্জি খারিজ করেছে সুপ্রিম কোর্ট। এই রায়ের পরেই কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধীকে তীব্র আক্রমণ শুরু করেছে বিজেপি। রাফায়েল মামলার আর্জি খারিজ হওয়ার কিছুক্ষণ পরেই কেন্দ্রীয় মন্ত্রী তথা বিজেপি নেতা রবিশংকর প্রসাদ বলেন, “এই রায় বেরনোর পর কংগ্রেস এবং রাহুল গান্ধীর ক্ষমা চাওয়া উচিত।”

শবরীমালা,রাহুল গান্ধীর মানহানি এবং রাফাল জেট দুর্নীতি একের পর এক ‘হাই প্রোফাইল’ মামলার রায় ঘোষণায় কি হয় তা জানতে মুখিয়ে ছিল দেশ। ১৪ই নভেম্বরেই এই মামলা গুলির রায় ঘোষণা হবে সে কথা আগেই জানিয়েছিলেন প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ। সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতির পদ থেকে অবসর গ্রহণ করবেন আগামী ১৭ নভেম্বর। আর অবসর গ্রহণের আগে তিনি বেশ কিছু সংবেদনশীল এবং বহুল চর্চিত মামলার রায় দেবেন বলে আগেই জানিয়েছিলেন গগৈ।

গত শনিবারেই অযোধ্যা মামলার রায় ঘোষণা করেছিল দেশের সর্বোচ্চ আদালত। এদিন সকাল সাড়ে দশটা থেকে এই তিনটি মামলার রায় ঘোষণা শুরু করে সুপ্রিম কোর্ট ।রাফায়েল নিয়ে দুর্নীতি হয়েছে এই প্রেক্ষিতে আগেই মামলার আবেদন করেছিল বিরোধীরা। গত বছর ডিসেম্বর মাসে সেই আর্জি খারিজ করে দেয় সুপ্রিম কোর্ট। কিন্তু, চলতি বছরের ১০ মে প্রাক্তন মন্ত্রী যশবন্ত সিনহা,অরুণ শৌরি এবং আইনজীবী প্রশান্ত ভূষণ সুপ্রিম কোর্টে এই মামলা পুনর্বিবেচনার জন্য আবেদন জানিয়েছিলেন। সেই আবেদন পুনর্বিবেচনার আর্জি এ দিন খারিজ করে দেয় রঞ্জন গগৈয়ের নেতৃত্বাধীন তিন সদস্যের বেঞ্চ।

গতকাল অর্থাৎ বুধবারই প্রধান বিচারপতির দফতরকে তথ্য জানার অধিকার আইনের আওতায় আনার পক্ষে রায় দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট।বৃহস্পতিবার শবরীমালা মন্দির মামলায় খতিয়ে দেখতে সাত সদস্যের বৃহত্তর সাংবিধানিক বেঞ্চে পাঠিয়েছেন প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈয়ের তত্ত্বাবধানে থাকা পাঁচ সদস্যের বেঞ্চ।

অন্যদিকে, এদিনই প্রধানমন্ত্রীকে ‘চৌকিদার চোর হ্যায়’ বলায় কংগ্রেস সাংসদ রাহুল গান্ধীর বিরুদ্ধে মানহানি মামলার রায়ও দিয়েছে দেশের সর্বোচ্চ আদালত।গত লোকসভা ভোটে নির্বাচনী প্রচারে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে ‘চৌকিদার চোর হ্যায়’ বলে স্লোগান দিয়েছিলেন কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী। জনসভাতে এই স্লোগানের পরিপ্রেক্ষিতেই রাহুলের বিরুদ্ধে মানহানির মামলা দায়ের করেন বিজেপি নেত্রী মীনাক্ষী লেখি। এই মামলা পর্যবেক্ষণে সুপ্রিম কোর্ট রায় দিতে গিয়ে জানায়, রাহুল গান্ধীর এই ধরনের মন্তব্য দুর্ভাগ্যজনক। এমন মন্তব্যের ক্ষেত্রে পরবর্তীকালে তাঁকে সতর্ক হতেও নির্দেশ দেয় আদালত।

ঠিক এরপরেই কংগ্রেসের দিকে আক্রমণ শানাতে শুরু করে পদ্ম শিবির। বিজেপি তার সোশ্যাল মিডিয়ায় টুইট করে লেখে, ‘রাহুল গান্ধী একসময়ে বলেন প্রাক্তন ফরাসি রাষ্ট্রপতি ফ্রাঁসোয়া ওলাঁদ নাকি ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে ‘চোর’ বলেছিলেন। কিন্তু পরে তিনি জানান, এটি সম্পূর্ণ মিথ্যে।’

বিজেপির সোশ্যাল মিডিয়ার পাশাপাশি এই রায় নিয়ে মুখ খুলেছেন বিজেপি নেতারাও। রাহুল গান্ধীর মানহানি মামলার রায়ে বেরনোর পরেই কেন্দ্রীয় মন্ত্রী রবিশংকর প্রকাশ জানান, ‘রাহুল গান্ধী তো একসময়ে বলেছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী চোর। কিন্তু এ দিন সুপ্রিম কোর্টের রায়ে প্রমাণিত হয়ে গেল এটা সম্পূর্ণ মিথ্যে ছাড়া আর কিছু না।’

প্রধানমন্ত্রীকে চোর বলার জন্য রাহুল গান্ধীকে ক্ষমা চাওয়ার পরামর্শও দেন এই বিজেপি নেতা। রাফায়েল মামলার পুনর্বিবেচনার আর্জি খারিজ হতেই কংগ্রেসকে বিঁধেছেন বিজেপির কার্যকরী সভাপতি জেপি নাড্ডা। এই রায় বেরনোর পর তিনি বলেন, ‘রাফায়েল ইস্যু নিয়ে রাহুল গান্ধী এবং তার দল কংগ্রেস রাস্তা থেকে সংসদ ভবন সর্বত্রই দেশকে ভুল পথে চালিত করতে চেয়েছে। কিন্তু সত্যি একদিন সামনে আসতই। আমি আশা করব দেশে ফিরে রাহুল গান্ধী দেশবাসীর কাছে ক্ষমা চাইবেন।’ রাফায়েল রায় নিয়ে এখনও পর্যন্ত মুখ খোলেনি কংগ্রেস নেতৃত্ব।