জয়পুর: দেশ জুড়ে আলোড়ন ফেলে দিয়েছে আলওয়াল গণধর্ষণের ঘটনা৷ বৃহস্পতিবার নির্যাতিতা মহিলার সঙ্গে দেখা করেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী৷ কথা বলেন পরিবারের সঙ্গে৷ আশ্বাস দিয়ে জানান, নির্যাতিতাকে ‘ন্যায়’ তিনি দিয়েই ছাড়বেন৷

রাজস্থানের আলওয়ারের ঘটনায় চাপে কংগ্রেস৷ কারণ রাজ্যে সেখানে তাদেরই সরকার৷ মুখ্যমন্ত্রীর আসনে অশোক গেহলট৷ রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে প্রথম থেকেই খবরটি ধামাচাপা দেওয়ার অভিযোগ ওঠে৷ অসহযোগিতার অভিযোগ ওঠে পুলিশের বিরুদ্ধেও৷ নির্বাচনের সময় এমন খবর পেয়ে কংগ্রেসের বিরুদ্ধে ব্যবহার করতে নেমে পড়ে বিজেপি ও মায়াবতী৷

দলিত নেত্রীর অভিযোগ, ভোটের কারণ দেখিয়ে পুলিশ ইচ্ছাকৃতভাবে এফআইআর নিতে চায়নি৷ আলওয়ারের ঘটনা নিয়ে কংগ্রেসকে তুলোধনা করতে ছাড়েননি নরেন্দ্র মোদীও৷ উত্তরপ্রদেশের জনসভায় বলেন, রাজস্থানে এক দলিত মহিলাকে ধর্ষণ করা হল৷ আর অভিযুক্তদের ধরার বদলে কংগ্রেস সরকার অভিযোগটি ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করছে৷

তাই ভোটের সময় বিক্ষোভের আগুন যাতে আর না ছড়ায় তাই এবার স্বয়ং হাজির হলেন রাহুল গান্ধী৷ বারবার একই কথা বলতে থাকেন৷ নির্যাতিতাকে ন্যায় পাইয়ে দেবেনই৷ তবে পরিবারের সঙ্গে কী কথা হয়েছে তা নিয়ে মুখ খোলেননি কংগ্রেস সভাপতি৷ রাহুল বলেন, ‘‘আমি একটা কথাই বলতে চাই৷ নির্যাতিতা ও তাঁর পরিবার বিচার পাবে৷ এখানে রাজনীতি করতে আসেনি৷ আবেগের টানে এসেছি৷’’ রাহুলের সঙ্গেই ছিলেন মুখ্যমন্ত্রী অশোক গেহলট৷ পুলিশি নিস্ক্রিয়তার অভিযোগ উড়িয়ে দেন৷ জানান, ঘটনাটি ঘটার দু’দিন পর অর্থাৎ ২মে এফআইআর দায়ের হয়েছে৷

গত ২৬ এপ্রিল স্বামীর সঙ্গে মোটরবাইকে যাওয়ার সময় গণধর্ষিতা এক দলিত মহিলা৷ রাস্তা আটকে তাদেরকে পাশের জমিতে নিয়ে যাওয়া হয়৷ স্বামীকে বেধড়ক মারা হয়৷ স্ত্রীকে ধর্ষণ করা হয়৷ গোটা ঘটনার ভিডিও রেকর্ডিং করে৷ পরে নির্যাতিতার স্বামী পুলিশের বিরুদ্ধে অসহযোগিতার অভিযোগ তোলেন৷ জানান, ৩০ এপ্রিল পুলিশকে জানানো হয়৷ আর এফআইআর নেওয়া হয় ৭ মে৷ অর্থাৎ পঞ্চম দফার ভোট শেষ হওয়ার পরের দিন৷