নয়াদিল্লি: পরিবর্তন আসছে না৷ কংগ্রেস সভাপতি থাকছেন রাহুল গান্ধীই৷ জানিয়ে দিল কংগ্রেস কোর কমিটি৷ গত শনিবার থেকে এই বিষয়ে জল্পনা চলছিল৷ তবে মঙ্গলবার সকালেই প্রিয়াঙ্কা গান্ধী ভডরা ও আহমেদ প্যাটেল তড়িঘড়ি রাহুল গান্ধীর বাসভবনে যান৷ সেখানেই চলে এক প্রস্থ বৈঠক৷ এই বৈঠকে ছিলেন শচিন পাইলটও৷

রুদ্ধদ্বার এই বৈঠকের পর জানিয়ে দেওয়া হয় কংগ্রেস ওয়ার্কিং কমিটির পূর্ব নির্ধারিত বৈঠক এদিন হচ্ছে না৷ ফলে কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধীর উত্তরসূরী খোঁজার কোনও প্রয়োজন নেই৷ কংগ্রেস সভাপতি পদে বহাল থাকছেন রাহুল গান্ধীই৷

এদিন এই বিষয়ে একটি ট্যুইট করে তামিল সুপারস্টার ও রাজনীতিবিদ রজনীকান্ত৷ তিনি বলেন কংগ্রেস সভাপতির পদ থেকে যদি রাহুল গান্ধী সরে যান, তবে তা কংগ্রেসের জন্য আরও বড় বিপর্যয় হবে৷ ভারতের মত গণতান্ত্রিক দেশে শক্তিশালী বিরোধীদের থাকা খুব গুরুত্বপূর্ণ৷

লোকসভা ভোটে দলের ভরাডুবির দায়ভার নিজের কাঁধে নিয়ে সরে যেতে চাইছেন রাহুল গান্ধী৷ বেশ কয়েকদিন আগে থেকেই এই জল্পনা চলছিল যে পদত্যাগ করতে পারেন তিনি৷ তবে সেই খবর গুজব বলে উড়িয়ে দিয়েছিলেন কংগ্রেস শীর্ষ নেতারা৷ যদিও তাতে ড্যামেজ কন্ট্রোল করা যায়নি৷ সত্যি এবার পদত্যাগ করতে চাইছেন রাহুল, প্রকাশ্যেই জানিয়েছিলেন সেকথা৷

যদি সত্যিই রাহুল গান্ধী পদত্যাগ করেন, তাহলে তাঁর আসনে কে বসবেন? কংগ্রেস ওয়ার্কিং কমিটির আলোচনার মূল অ্যাজেন্ডা ছিল এটাই৷ তবে রাহুল গান্ধীকে এই সিদ্ধান্ত থেকে বিরত করার নিরন্তর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছিলেন কংগ্রেসের শীর্ষ নেতারা৷ কংগ্রেস ওয়ার্কিং কমিটির সূত্র জানাচ্ছিল রাহুল গান্ধী পদত্যাগ করলে কংগ্রেসের সাংগঠনিক কাঠামোতেও বড়সড় পরিবর্তন আসবে৷

কংগ্রেস নেতা আহমেদ প্যাটেল ও কেসি ভেনুগোপালের সাথে সোমবার বৈঠক করেন রাহুল৷ সেখানেই দলের নতুন সভাপতি খোঁজার পরামর্শ দেন তিনি৷ কারণ এই বিষয়ে তিনি সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেছেন, যে সভাপতির পদ থেকে সরছেন তিনি৷ তাঁর এই সিদ্ধান্তের বদল হবে না বলেই কংগ্রেস সূত্র জানাচ্ছিল৷

রবিবার এনডিটিভিকে দেওয়া সাক্ষাতকারে সেই সূত্র মারফত খবর ছিল লোকসভা নির্বাচনের চূড়ান্ত ফলের পর দলের বিপর্যয়ের দায়িত্ব নিজের ঘাড়েই নিচ্ছেন কংগ্রেস সভাপতি৷ ফলে পদ ছাড়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন তিনি৷ তবে সব জল্পনার অবসান৷ কংগ্রেস সভাপতি থাকছেন রাহুলই৷ তাঁর নেতৃত্বেই ফের ঘুরে দাঁড়াবার লড়াই শুরু করবে হাত শিবির৷