স্টাফ রিপোর্টার, বারাকপুর: ‘রাহুল গান্ধীর মত মিথ্যাবাদী আমি খুবই কম দেখেছি৷ ও সব সময়ই গল্প কথা বলে। উনি অমেঠির সাংসদ, কিন্তু অমেঠির জন্য কি উন্নয়ন করেছে ও? গত সাড়ে চার বছর আগে পর্যন্ত ওর সংসদীয় এলাকায় কংগ্রেস ক্ষমতায় ছিল। সেই সময়ও রাহুল গান্ধীই সাংসদ ছিল । কিন্তু ও গরীবদের জন্য বা ওর সংসদীয় এলাকার বেকার যুবকদের জন্য কি করেছে? ওর এলাকায় কতজন বেকার যুবকের পকেটে টাকা পৌঁছেছে? কতজন চাকরি পেয়েছে? সব গল্প কথা বলে রাহুল৷’ এমনই বিস্ফোরক মন্তব্য মধ্যপ্রদেশের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং চৌহানের৷

এদিন উত্তর ২৪ পরগণার পানিহাটি লোকসংস্কৃতি ভবনে কলকাতা উত্তর শহরতলি মণ্ডলের উদ্যোগে আয়োজিত গণতন্ত্র বাঁচাও সভায় বক্তব্য রাখেন শিবরাজ৷ তাঁর বক্তব্যে রাজ্যের শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেসের কড়া সমালোচনা উঠে আসে৷ এদিন তিনি বলেন ‘বাংলায় গণতন্ত্র বিপন্ন, গণতন্ত্রকে খুন করেছে মমতা বন্দোপাধ্যায়ের তৃণমূল সরকার। আজ গণতন্ত্র বাঁচাও জনসভা এই পানিহাটির খোলা ময়দানে হওয়ার কথা ছিল, কিন্তু আমাকে বদ্ধ ঘরে সভা করতে হচ্ছে৷ এর কারন বাংলায় গণতন্ত্র বিপন্ন৷ আমাদের ১০০রও বেশী দলীয় কর্মীকে ওরা হত্যা করেছে। দিনের পর দিন মিথ্যা মামলায় জর্জরিত করে দেওয়া হচ্ছে আমাদের দলের কর্মীদের। বাংলায় এই শাসন চলতে পারে না। আমরা তৃণমূল সরকারকে উপড়ে ফেলব। বাংলায় বিজেপির সরকার প্রতিষ্ঠা হবে।’

সভা শেষে বেরোনোর সময় সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা প্রসঙ্গে শিবরাজ সিং চৌহান বলেন, ‘সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে সিবিআই তার কর্তব্য পালন করছে৷ আদালতের নির্দেশে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা নিরপেক্ষ কাজ করছে৷ সিবিআইকে বদনাম করছে বিরোধী দলগুলো। সিবিআই নিরপেক্ষ ভাবেই বিভিন্ন তদন্তের প্রক্রিয়া এগিয়ে নিয়ে যায়৷’

কলকাতার পুলিশ কমিশনার ইস্যুতে শিবরাজ সিং চৌহান বলেন, ‘কাউকে হেনস্থা করা সিবিআইয়ের কাজ নয়। সিবিআই নিরপেক্ষ তদন্ত করে। তদন্তকারী সংস্থাকে যে কোন বিষয়ে তদন্তের কাজে সহযোগিতা করা উচিত। দেশের শীর্ষ আদালতও সেই নির্দেশই দিয়েছে।’

পশ্চিমবঙ্গে গণতন্ত্র বাঁচতে এই জনসভার আয়োজন করা হয়েছিল বলে জেলা বিজেপি জানায়৷ পানিহাটি লোকসংস্কৃতি ভবনের ভিতরে অডিটোরিয়ামে বিজেপির এই গণতন্ত্র বাঁচাও সভায় মধ্যপ্রদেশের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন রাজ্য বিজেপির সাধারণ সম্পাদিকা দেবশ্রী চৌধুরী, রাজ্য বিজেপি নেতা জয়প্রকাশ মজুমদার, অমিতাভ রায় সহ প্রায় হাজার দুয়েক বিজেপি সমর্থক৷