নয়াদিল্লি: চাঞ্চল্যকর তথ্য দিল সানডে গার্ডিয়ানের রিপোর্ট৷ রিপোর্ট জানাচ্ছে রাহুল গান্ধীর নির্বাচনী স্ট্র্যাটেজিকে ডুবিয়েছে দলের কোর কমিটিই৷ ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনে রাহুল গান্ধীকে প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থী হিসেবে প্রজেক্ট করাই সব থেকে বড় ভুল ছিল বলে জানাচ্ছে রিপোর্ট৷ কোর কমিটির রিসার্চ অনুযায়ী নির্বাচনে ১৬৪-১৮৪টি আসন পাবে কংগ্রেস, এই তথ্যও ভুল ছিল৷ ফলে এই সব বিভ্রান্তিকর তথ্যে রাহুল গান্ধীর স্ট্র্যাটেজিও মার খায়৷

রাহুল গান্ধীর অন্যতম ঘনিষ্ঠ প্রবীণ চক্রবর্তী ও দিব্যা স্পন্দনাও লোকসভা নির্বাচনের সময় অজ্ঞাতবাসে চলে যান, যা বড়সড় ক্ষতি করে দলের৷ রিপোর্ট অনুযায়ী, অখিলেশ যাদব, এম কে স্ট্যালিন, ওমর আবদুল্লাহ, শরদ পাওয়ারের মতো শরিকদের সঙ্গেও অনেক পরে আলোচনায় বসেন৷ যা পরিকল্পনায় ধাক্কা দিয়েছিল৷ কংগ্রেসের কোর কমিটিই ভুল বুঝিয়েছিল রাহুলকে, জানাচ্ছে রিপোর্ট৷

এদিকে, লোকসভা ভোটে দলের ভরাডুবির দায়ভার নিজের কাঁধে নিয়ে সরে যেতে চেয়েছেন রাহুল গান্ধী৷ বেশ কয়েকদিন আগে থেকেই এই জল্পনা চলছিল যে পদত্যাগ করতে পারেন তিনি৷ তবে সেই খবর গুজব বলে উড়িয়ে দিয়েছিলেন কংগ্রেস শীর্ষ নেতারা৷ যদিও তাতে ড্যামেজ কন্ট্রোল করা যায়নি৷ সত্যি এবার পদত্যাগ করতে চাইছেন রাহুল, প্রকাশ্যেই জানিয়েছিলেন সেকথা৷

যদি সত্যিই রাহুল গান্ধী পদত্যাগ করেন, তাহলে তাঁর আসনে কে বসবেন? কংগ্রেস ওয়ার্কিং কমিটির আলোচনার মূল অ্যাজেন্ডা ছিল এটাই৷ তবে রাহুল গান্ধীকে এই সিদ্ধান্ত থেকে বিরত করার নিরন্তর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছিলেন কংগ্রেসের শীর্ষ নেতারা৷ কংগ্রেস ওয়ার্কিং কমিটির সূত্র জানাচ্ছিল রাহুল গান্ধী পদত্যাগ করলে কংগ্রেসের সাংগঠনিক কাঠামোতেও বড়সড় পরিবর্তন আসবে৷

তবে এই রিপোর্ট প্রকাশিত হওয়ার পর রাহুল গান্ধীর অবস্থান বদলায় কিনা, সেদিকে নজর রাখছে রাজনৈতিক মহল৷ এদিকে, এর আগেই কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক প্রিয়াঙ্কা গান্ধী বলেছিলেন সবাই নিজের দলের জন্য ১০০ শতাংশ দেননি৷ অনেকেই ফাঁকি দিয়েছেন, যার ফল ভোগ করতে হয়েছে কংগ্রেসকে৷ ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনে কংগ্রেসের ভরাডুবির জন্য দলীয় কর্মীদের একাংশের নিষ্ক্রিয়তাকেই দায়ি করেছিলেন কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক প্রিয়াঙ্কা গান্ধী৷

উত্তরপ্রদেশের রায়বরেলিতে সোনিয়া গান্ধীর ধন্যবাদজ্ঞাপক মিছিলের পর যথেষ্ট হতাশ লাগছিল প্রিয়াঙ্কাকে৷ সেখানেই তিনি বলেন, উত্তরপ্রদেশে কর্মীদের সবাই যথেষ্ট সক্রিয় ছিলেন না৷ কারা কারা নিষ্ক্রিয় ছিলেন, তা খুঁজে বের করবে দল৷ প্রয়োজনে কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হবে৷ প্রিয়াঙ্কার দাবি তিনি এদিন কোনও ভাষণ দিতে আসেননি৷ সত্যিটা বলতে এসেছেন৷ আর সত্যিটা হল রায়বরেলির জয় এসেছে সোনিয়া গান্ধী ও এখানকার মানুষের হাত ধরে৷