মুম্বই : বর্তমান মোদী সরকারের আমলে মানুষের বাকস্বাধীনতা নেই ৷ দুদিন আগে এক অনুষ্ঠানে গিয়ে খোদ স্স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী  অমিত শাহের সামনে এমন বার্তা দিয়েছিলেন শিল্পপতি রাহুল বাজাজ ৷ আর তারপরে এই শিল্পপতির বিরুদ্ধে তীব্র সমালোচনা শুরু করে দিয়েছে অমিত শাহের দল ৷

সাহস করে গত শনিবার অমিত শাহের সামনে এই অশীতিপর শিল্পপতি প্রশ্ন রেখে ছিলেন,মানুষের মুখ খোলার স্বাধীনতা নেই কেন? যদিও ওই সভায় তখন তাঁকে অভয় দিয়েছিলেন দেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। কিন্ত দেখা গেল তারপর এই শিল্পপতির বিরুদ্ধে একের পর এক বিরূপ মন্তব্য ধেয়ে আসছে বিজেপি নেতা মন্ত্রীদের কাছ থেকে৷

সেদিনের ওই অনুষ্ঠানে বাজাজের বক্তব্য ছিল- শিল্পমহল আতঙ্কে রয়েছে। সেখানে বাণিজ্যমন্ত্রী পীযূষ গয়াল এবং অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামনের সঙ্গে বসা অমিত শাহের কাছে এই শিল্পপতির প্রশ্ন তোলেন -আপনাদের বিরুদ্ধে বলতে লোকে ভয় পান। যদিও তখন হাসিমুখে অমিত শাহের জবাব ছিল,আপনার এমন প্রশ্নের পরে কেউ মানতে পারবে না যে, কেউ ভয় পান।

এদিকে এই প্রসঙ্গে কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামনের কটাক্ষ, জবাব চাওয়ার বদলে জনগনের দৃষ্টি আকর্ষণ করতেই উনি এ ভাবে এমন মনোভাব প্রকাশ করেছেন যা জাতীয় স্বার্থকে আঘাত করতে পারে। বিশেষত বিজেপির তথ্য-প্রযুক্তি মোর্চার প্রধান অমিত মালব্যর মাধ্যমে সোশ্যাল মিডিয়ায় নেমে পড়তে দেখা গিয়েছে অমিত শাহের দলকে। কারণ রাহুল বাজাজের পুরনো ভিডিয়ো মন্তব্য ইত্যাদি খুঁজে নিয়ে এই শিল্পপতির আচরণ কেমন তা নেট দুনিয়ায় তুলে ধরার চেষ্টা করা হয়েছে। ওই অনুষ্ঠানে রাহুল বাজাজ দাবি করেন, তিনি সব সময় সকলের সমালোচনা করে এসেছেন কারণ তাঁর কারও প্রশংসা করা ধাতে নেই। সেখানে বিজেপি সোশ্যাল মিডিয়ায় সেই ভিডিও তুলে ধরেছে যেখানে তাঁকে দেখা যাচ্ছে রাহুল গান্ধীর প্রশংসা করতে ৷

ওই ভিডিওটির মাধ্যমে নেট দুনিয়ায় এই শিল্পপতির রাজনৈতিক অবস্থান কোনদিকে সেই সম্পর্কেও বিজেপি পাল্টা বার্তা দিতে চেয়েছে ৷ লাইসেন্স-রাজের যুগে বেড়ে ওঠা এই সব শিল্পপতিরা কংগ্রেসের দিকেই ঝুঁকে থাকেন এবং সুবিধা নিতেন। অন্যদিকে নিজেদের বক্তব্যের পিছনে যুক্তি শানাতে বিজেপি আইআইএম-আমদাবাদের একটি ‘কেস-স্টাডি’ও তুলে ধরেছেন। তাছাড়া বাজাজের উল্টো সুরে কথা বলা বেশ কয়েক জন শিল্পপতির বক্তব্যও তুলে ধরা হয়েছে ৷