দাভোস: বিনা পয়সা কিছু পেলে তা নিয়ে নাচানাচি করা ঠিক নয় ৷ কারণ কোন কিছুই আসলে বিনা পয়সা মেলে না৷ দেখা যাবে কেউ না কেউ এর দাম মেটাচ্ছে৷ এভাবেই গ্রাহকদের সতর্ক বার্তা দিলেন রিজার্ভ ব্যাংকের প্রাক্তন গভর্নর রঘুরাম রাজন৷ পাশাপাশি তিনি প্রশ্ন তুলেছেন, আপাতত যা কিছু বিনা পয়সায় অথবা নামমাত্র দামে পাওয়া যাচ্ছে তা কতদিন এভাবে বাজারে পাওয়া যাবে৷

সুইজারল্যান্ডের দাভোসে ওয়ার্ল্ড ইকনমিক ফোরাম-এর মঞ্চে হাজির হয়ে এমন প্রশ্ন উস্কে দিয়েছেন রাজন। এই প্রসঙ্গে তাঁর অভিমত, কোনও কিছুই অনন্ত কাল বিনা পয়সায় অথবা নামমাত্র দামে পাওয়া অসম্ভব। যদিও গোটা দুনিয়াজুড়ে এখন কার্যত ফ্রি-তে পণ্য ও পরিষেবার দেওয়ার হিড়িক পড়েছে৷

অর্থনীতির তত্ত্ব অনুসারে, কোনও সংস্থা বিপুল পরিমাণে পণ্য উৎপাদন করে পণ্য বা পরিষেবার গড় খরচ কমান হয়ে থাকে। মূলত সেই কৌশল প্রয়োগ করেই এখন ক্রেতা বা গ্রাহকদের অনেক সময়ে কার্যত বিনা পয়সায় পণ্য বা পরিষেবা দিচ্ছে বিভিন্ন সংস্থা।

মূলত বাজার ধরার জন্য বড় সংস্থাগুলি গ্রাহকদের আকৃষ্ট করতে ‘ফ্রি’তে তা দিয়ে থাকে৷ কিন্তু দামের যুদ্ধে বড় সংস্থার সঙ্গে ছোট সংস্থাগুলি কতটা পেরে উঠবে৷ তাছাড়া রাজনের প্রশ্ন রয়েছে , কোনও সংস্থা গাঁটের কড়ি খরচ করে তা নিশ্চয়ই দেবে না৷ সেক্ষেত্রে খরচ বহন করছে কে বা কারা ?

রাজনের প্রশ্নটা যথেষ্টই বাস্তবিক ? যেমন বর্তমান ভারতে, মাসুলের গলাকাটা প্রতিযোগিতায় নাভিশ্বাস উঠেছে টেলিকম সংস্থাগুলির কিংবা বিমান টিকিটের দাম কমাতে গিয়ে ব্যালান্স শিটে ঋণের বোঝা বাড়ছে ৷ আবার বিপুল বিক্রি সত্ত্বেও অধিকাংশ ই-কমার্স সংস্থাই ঠিকমতো লাভের মুখই দেখতে ব্যর্থ । শুধু তাই নয় সংস্থার ঝাঁপ বন্ধ হওয়া কিংবা কর্মী ছাঁটাইয়ের
দেশের অর্থনীতিতে প্রভাব ফেলছে৷