মেলবোর্ন: ২৬ ডিসেম্বর থেকে মেলবোর্ন ক্রিকেট গ্রাউন্ডে শুরু হতে চলেছে বক্সিং ডে টেস্ট। ভারত-অস্ট্রেলিয়া সিরিজের তৃতীয় ম্যাচ আক্ষরিক অর্থে অ্যাসিড টেস্ট দুই শিবিরের কাছে। অ্যাডিলেডে প্রথম টেস্ট জিতে দুরন্ত শুরু করলেও ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে ব্যর্থ কোহলিব্রিগেড। তাই পারথ টেস্ট জিতে সিরিজে সমতায় ফিরেছে ব্যাগি গ্রিণরা। সুতরাং মেলবোর্ন টেস্ট জিতে সিরিজে এগিয়ে যাওয়াতেই এখন পাখির চোখ দুই দলের।

কিন্তু মেলবোর্নে বক্সিং ডে টেস্ট শুরুর আগে ভারতীয় শিবিরে হঠাৎই চোট-আঘাতের কালো ছায়া। পারথে প্রথম একাদশে কোনও স্পেশালিস্ট স্পিনার না থাকায় তার ফল ভুগতে হয়েছে ভারতীয় শিবিরকে। উলটোদিকে দুই ইনিংস মিলিয়ে আট উইকেট নিয়ে ম্যাচের সেরা হয়েছেন অজি স্পিনার ন্যাথন লায়ন।

প্রথম টেস্টে আশাব্যঞ্জক পারফরম্যান্সের পরও পারথে অশ্বিনের না থাকার কারণ হিসেবে দলের হেড স্যার জানান, তলপেটে পেশির টান অনুভব করায় ছিটকে যেতে হয় দক্ষিণী স্পিনারকে। পাশাপাশি কাঁধের চোটের কারণে পুরোপুরি ফিট না থাকায় মাঠে নামানো যায়নি রবীন্দ্র জাদেজাকেও। শাস্ত্রীর আরও সংযোজন ব্যাথা কমানোর ইঞ্জেকশন নিলেও দ্বিতীয় টেস্টের আগে ফিট জাদেজাকে পাওয়া না যাওয়ায় চার ফাস্ট বোলারেই মাঠে নামতে হয়েছিল আমাদের।

কিন্তু কোহলি আবার জানিয়েছেন অশ্বিন বা জাদেজা ফিট থাকলেও চার পেসারে নামার বিষয়টা পূর্বপরিকল্পিত ছিল। সে যাইহোক, আসল বিষয় তৃতীয় টেস্ট শুরুর আগে হাতে বাকি আর মাত্র তিনদিন। কিন্তু দলের প্রথম দুই স্পিনার এখনও সুস্থ নন পুরোপুরি। চোট নিয়েও দ্বিতীয় টেস্টের ১৩ জনের দলে কীভাবে চলে এলেন জাদেজা? প্রশ্নের উত্তরে কোহলি জানিয়েছেন, ‘ফিটনেস নয়, পরিস্থিতির কথা ভেবে ওকে রাখা হয়েছিল।’ আর শাস্ত্রী জানাচ্ছেন, ‘৮০ শতাংশ সুস্থ থাকলেও মেলবোর্নে জাড্ডুকে খেলানোর চেষ্টা করানো হবে।’

পাশাপাশি অশ্বিনকে নিয়ে কোহলিদের হেডস্যার জানান, আগামী ৪৮ ঘন্টার মধ্যে ওর চোট মূল্যায়ণ করে তবেই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। তবে চোট সারিয়ে এখন অশ্বিন অনেকটাই সুস্থ বলে জানাচ্ছেন শাস্ত্রী। তবে আগামিকাল  চোট কী অবস্থায় থাকে সেটা যেহেতু বলা এখনই সম্ভব নয়। তাই ম্যাচের ঠিক আগেই দক্ষিণী স্পিনারের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে টিম ম্যানেজমেন্ট। তবে এই দুই স্পিনার নিতান্তই খেলার অবস্থায় না থকলে কী হবে, প্রশ্নটা তোলা থাক ম্যাচের আগেরদিন দল ঘোষণা পর্যন্ত।