কলকাতা: মার্কোস জিমেনেজ দে লা এসপাদা মার্টিন। ইস্টবেঙ্গলের নয়া স্প্যানিশ গোলমেশিন। জামশদপুর এফসি’কে গোলের মালা পরানোর দিনেই নয়া এই বিদেশি স্ট্রাইকারকে চূড়ান্ত করে ফেলল লাল-হলুদ। স্পেনের সেগুন্ডা ‘বি’ ডিভিশন ক্লাব অ্যাটলেটিকো বেলেরেস থেকে বছর তেত্রিশের এই অভিজ্ঞ স্ট্রাইকারকে ছিনিয়ে নিল তারা।

সিনিয়র কেরিয়ারে ৩৩৬ ম্যাচে নামের পাশে রয়েছে ১১০ গোল। ৬ ফুট ১ ইঞ্চির এসপাদা মার্টিনকে তাই ‘গোলমেশিন’ বলাটা একেবারেই অত্যুক্তি নয়। ইউথ কেরিয়ার লা সেল্লে’তে শুরু হলেও সিনিয়র কেরিয়ারে বেশিরভাগ সময়টা কাটিয়েছেন সেগুন্ডা ‘বি’ডিভিশন ক্লাবেই। তার মধ্যে ২০১২-১৬ স্পেনের জিমন্যাস্টিক ক্লাবের হয়ে সর্বোচ্চ ১২৪ ম্যাচে ৩৯ গোল করেছেন তিনি। এছাড়াও ২০১৬-১৮ হংকং প্রিমিয়র লিগে সাদার্ন ক্লাবের হয়ে ২৮ ম্যাচে ২২ গোল রয়েছে মার্টিনের নামের পাশে। অ্যাটলেটিকো বেলেরেসের হয়ে গত মরশুমে ৩৩ ম্যাচে করেছেন ৯টি গোল।

আরও পড়ুন: জামশেদপুর এফসি’কে গোলের মালা পরাল লাল-হলুদ

কোচ আলেজান্দ্রোর কথামতো গত মরশুমের শেষে এনরিকে এসকুয়েদার সঙ্গে আর কথা বাড়ায়নি ইস্টবেঙ্গল। গত মরশুমে নজর কাড়া জবি জাস্টিনও এবার জার্সি বদলে এটিকে’তে। চলতি ডুরান্ডে স্ট্রাইকার পজিশনে খেলে সফল হলেও আদতে হাইমে কোলাডো পজিটিভ স্ট্রাইকার নন। স্বাভাবিকভাবেই দেশীয় স্ট্রাইকারদের পাশে একজন ভালোমানের বিদেশি স্ট্রাইকারের সন্ধানে ছিল লাল-হলুদ। অবশেষে আলেজান্দ্রোর জহুরির চোখ খুঁজে নিল দে লা এসপাদা মার্টিনকে। কোচের কতামতোই স্প্যানিশ এই স্ট্রাইকারের সঙ্গে চুক্তি চূড়ান্ত করে ইনভেস্টর গ্রুপ।

আরও পড়ুন: জম্মু-কাশ্মীরের হয়ে মাঠে নামবেন লাদাখের ক্রিকেটাররা

পঞ্চম বিদেশি হিসেবে ইস্টবেঙ্গলে চূড়ান্ত হলেন মার্টিন। গত মরশুমে নজর আপফ্রন্টে নজর কাড়া এনরিকের পরিবর্ত হিসেবে কতটা নজর কাড়তে পারেন তিনি এখন সেটাই দেখার। ডুরান্ডে খেলার সম্ভাবনা না থাকলেও শীঘ্রই মার্টিনকে শহরে এনে কলকাতা লিগে তাঁকে খেলানোর ভাবনায় ক্লাব।

পপ্রশ্ন অনেক: নবম পর্ব

Tree-bute: আমফানের তাণ্ডবের পর কলকাতা শহরে শতাধিক গাছ বাঁচাল যারা