বাসেল: কাকতলীয় বিষয়, তবে কোর্টে সিন্ধুকে বাড়তি উদ্দীপ্ত করার পক্ষে যথেষ্ট ছিল বিশেষ এই প্রসঙ্গটিই৷ সিন্ধু যেদিন ভারতীয় ব্যাডমিন্টনকে আন্তর্জাতিক মানচিত্রে আলাদা করে চিহ্নিত করলেন, ঠিক সেই দিনটিই ছিল তাঁর মা পি বিজয়ার জন্মদিন৷ প্রথম ভারতীয় হিসাবে বিশ্বচ্যাম্পিয়ন হওয়ার পর স্বাভাবিকভাবেই নিজের সোনার পদক নিজের মাকে উৎসর্গ করেন পুসারলা৷

চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পর কোর্টে দাঁড়িয়েই সংক্ষিপ্ত সাক্ষাৎকারে সিন্ধু মা’কে পদক উৎসর্গ করার কথা বলেন৷ পাশাপাশি তাঁর এমন সাফল্যের জন্য কৃতিত্ব দিয়েছেন দুই কোচ পুলেল্লা গোপীচাঁদ ও কিম জি হিউনকে৷ তাঁকে আগাগোড়া সমর্থন করার জন্য ধন্যবাদ জানিয়েছেন দর্শকদেরও৷

আরও পড়ুন: ভালো পিচে টেস্ট ক্রিকেট কখনই বিরক্তিকর মনে হবে না: সচিন

কোচ ও সাপোর্ট স্টাফদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে সিন্ধু বলেন, ‘এই সাফল্যের জন্য আমি ধন্যবাদ জানাই কোচ কিম ও গোপী স্যারকে৷ ধন্যবাদ জানাই সাপোর্ট স্টাফদেরও৷ এই পদক আমি উৎসর্গ করছি আমার মাকে৷ আজ আমার মায়ের জন্মদিন৷’

সিন্ধু তাঁর মায়ের জন্মদিনের কথা জানানোর সঙ্গে সঙ্গেই প্রেজেন্টরের সঙ্গে গোটা গ্যালারি ‘হ্যাপি বার্থ-ডে’ গানের সুরে শুভেচ্ছা জানায় ভারতীয় তারকার মা’কে৷ তার আগে প্রথম ভারতীয় হিসাবে বিশ্বচ্যাম্পিয়ন হওয়া প্রসঙ্গে সিন্ধু বলেন, ‘এই পদক আমি দেশের জন্য জিতেছি৷ এক জন ভারতীয় হওয়ার জন্য আমি সত্যিই গর্বিত৷’

আরও পড়ুন: স্টোকসের অতিমানবিক ইনিংসে অবিশ্বাস্য জয় ব্রিটিশদের

মেয়ের কাছ থেকে জন্মদিনের এমন উপহার পেয়ে আপ্লুত সিন্ধুর মা৷ হায়দরাবাদের বাড়িতে বসে পরিবারের লোকেদের সঙ্গে সিন্ধুর ম্যাচ দেখেছেন তাঁর মা’ও৷ ম্যাচের পর এএনআইকে তিনি জানান যে, গোটা পরিবার ভীষণ খুশি সিন্ধু সোনা জেতায়৷ মেয়ে দেশে ফিরলে সোনার পদক হাতে নেওয়ার অপেক্ষায় রয়েছেন তিনি৷

উল্লেখ্য, জাপানের নোজোমি ওকুহারাকে ধরাশায়ী করে প্রথমবার বিশ্বচ্যাম্পিয়ন হলেন সিন্ধু৷ এই নিয়ে টানা তিনবার বিশ্বচ্যাম্পিয়নশিপের খেতাবি লড়াইয়ে জায়গা করে নিয়েছিলেন তিনি৷ গত দু’বার রানার্স হয়ে রুপোর পদকেই সন্তুষ্ট থাকতে হয়েছিল হায়দরাবাদী ব্যাডমিন্টন কুইনকে৷ এবার বিশ্বচ্যাম্পিয়নশিপ অভিযান শুরুর আগে সমর্থকদের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন পদকের রং বদলের৷ কথা রাখেন সিন্ধু৷ ওকুহারাকে ২১-৭, ২১-৭ স্ট্রেট গেমে উড়িয়ে দিয়ে ইতিহাসে চিরস্থায়ী জায়গা করে নেন তিনি৷

আরও পড়ুন: দু’বছর পর টেস্ট সেঞ্চুরি রাহানের, ক্যারিবিয়ানদের ৪১৯ রানের টার্গেট দিল ভারত

২০১৭ বিশ্বচ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে রূপকথার লড়াই হয়েছিল সিন্ধু ও ওকুহারার মধ্যে৷ সেবার প্রায় ২ ঘণ্টার ম্যারাথন লড়াই শেষে ওকুহারার কাছে সিন্ধু পরাজিত হয়েছিলেন ১৯-২১, ২২-২০, ২০-২২ গেমে৷ সেদিক থেকে এবার ওকুহারাকে পরাস্ত করে মধুর প্রতিশোধ নিলেন পিভি৷ মাঝে ২০১৮ সালের ফাইনালে ক্যারোলিনা মারিনের কাছে ১৯-২১, ১০-২১ গেমে হেরেছিলেন পুসারলা৷

এই নিয়ে বিশ্বচ্যাম্পিয়নশিপে মোট পাঁচটি পদক জিতলেন সিন্ধু৷ ২০১৩ ও ২০১৪ সালে পর পর দু’বার বিডব্লুএফ বিশ্বচ্যাম্পিয়নশিপের মহিলা সিঙ্গলসে ব্রোঞ্জ পদক জিতেছিলেন তিনি৷ ২০১৭ ও ২০১৮ সালে পর পর দু’বার রুপোর পদক গলায় ঝোলান ভারতীয় তারকা৷ এবার প্রথম ভারতীয় হিসাবে বিশ্বচ্যাম্পিয়নশিপের সোনার পদক জিতলেন সিন্ধু৷