মস্কো: আগামী বছরেই হাইপারসনিক পরমাণু মিসাইল নিক্ষেপ করতে চলেছে রাশিয়া। বুধবার এমনটাই ঘোষণা করলেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। দেশের কাছে এখন নতুন আধুনিক অস্ত্র আছে, সেটা জানান দিতেই এই ঘোষণা করেন তিনি।

সম্প্রতি সেই মিসাইলের সফল উৎক্ষেপণ সম্ভব হয়েছে বলেও উল্লেখ করেছেন তিনি। জানিয়েছেন, ২০১৯-এই রাশিয়ার অস্ত্রাগারে আসছে ইন্টারকন্টিনেন্টাল স্ট্র্যাটেজিক সিস্টেম। আর এই অস্ত্রই দেশের ভবিষ্যৎ তথা দেশের সেনাবাহিনীর ভবিষ্যৎ পাল্টে দেবে বলে উল্লেখ করেছেন তিনি।

বুধবার মিসাইলের পরীক্ষামূলক উৎক্ষেপণ করা হয়। এদিন রাশিয়ার প্রতিরক্ষা দফতরের ভবনে বসে সেই পরীক্ষার সাক্ষী থাকেন পুতিন নিজে। বিবৃতিতে জানানো হয় দক্ষিণ-পশ্চিম রাশিয়া থেকে উৎক্ষেপণ করা ওই মিসাইল সফলভাবে টার্গেটকে ধবংস করেছে।

পুতিন আগেই ঘোষণা করেছিলেন এই শক্তিশালী মিসাইলের কথা। Avangard নামে এই মিসাইল কার্যত পৃথিবীর যে কোনও প্রান্তে পৌঁছতে পারে। আমেরিকার মিসাইল শিল্ডও ভেঙে ফেলতে পারে এই মিসাইল।

গত মে মাসে প্রথমবার জনসমক্ষে অস্ত্রভাণ্ডার থেকে ‘ডুমসডে ওয়েপন’ বা ধ্বংসের অস্ত্র নিয়ে আসে রাশিয়া। Kh-47M2 Kinzhal নামে একটি হাইপারসনিক নিউক্লিয়ার মিসাইল প্রকাশ্যে আনে মস্কো। রাশিয়ার বিজয় দিবসের প্যারেডে ওই অস্ত্র প্রদর্শন করা হয়।

এটি একটি এয়ার-টু-সার্ফেস মিসাইল। শব্দের গতির থেকে ১০ গুন বেশি গতিতে পৌঁছতে পারে এই মিসাইল। অন্য যে কোনও অ্যান্টি-মিসাইল সিস্টেমের পক্ষে এটি আটকানো বেশ কঠিন। এই মিসাইলের রেঞ্জ প্রায় ২০০০ কিলোমিটার। সমুদ্রের মাঝে থাকা টার্গেটেও আঘাত করতে পারবে এটি। এটির দৈর্ঘ্য আট মিটার ও ১ মিটার চওড়া। এতে ৪৮০ কেজির নিউক্লিয়ার ওয়ারহেড থাকা সম্ভব।