স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: হুগলির ত্রিবেণী, বীরভূমের তারাপীঠের পর এবার পুরুলিয়া থেকে মাটি গেল রাম মন্দিরের ভূমিপুজোর জন্য। অযোধ্যা পাহাড়ের মাটি নিয়ে উত্তরপ্রদেশের অযোধ্যায় রওনা দিলেন বিজেপি কর্মীরা। কথিত আছে, পুরুলিয়ার অযোধ্যা পাহাড়ে এসেছিলেন রামচন্দ্র স্বয়ং।

কিছুদিন আগে পুরুলিয়ার বিজেপির সাংসদ জ্যোতির্ময় সিং মাহাতো দাবি করেছিলেন, সীতার তৃষ্ণা মেটাতে এই অযোধ্যা পাহাড়ে তীর মেরে জলের ধারা বের করেছিলেন রামচন্দ্র। সেই স্থান এখন সীতাকুণ্ড নামে পরিচিত। পর্যটকরা পাহাড়ের কোলে রাম মন্দির, সীতাকুণ্ড, লহরিয়া শিবমন্দির দেখতে ভিড় জমান। এই তিন জায়গায় মাটি সংগ্রহ করলেন স্থানীয় বাগমুন্ডি বিধানসভা এলাকার বিজেপি কর্মীরা।

হাজির ছিলেন পুরুলিয়া জেলা বিজেপির দুই সাধারণ সম্পাদক বিবেক রাঙ্গা, শঙ্কর মাহাতো, বাগমুন্ডি বিধান সভা এলাকায় দলের আহ্বায়ক জগদীশ কুমার,স্থানীয় নেতা রাকেশ মাহাতো সহ আরও অনেকে। অযোধ্যা পাহাড় থেকে কলসিতে ভরে মাটি প্রথমে নিয়ে যাওয়া হবে ঝাড়খণ্ডের রাঁচিতে। সেখান থেকে উত্তরপ্রদেশের অযোধ্যায়। দেশের বিভিন্ন সতীপীঠ থেকে গঙ্গার জল, মাটি পাঠানো হচ্ছে অযোধ্যায়।

এ রাজ্যের হুগলির ত্রিবেনি সঙ্গম থেকে জল ও বীরভূমের তারাপীঠ থেকে মাটি-যজ্ঞের ভষ্ম নিয়ে অযোধ্যায় রওনা দিয়েছে বিশ্বহিন্দু পরিষদের নেতারা। প্রসঙ্গত, আগামী ৫ অগাস্ট মন্দির নির্মাণের জন্য ভূমি পুজো করবেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী স্বয়ং।

ওই দিন ঠিক ১২টা ১৫ মিনিটে ৪০ কেজির রুপোর ইট পুঁতে মোদীর হাতে ভূমিপুজোর উদ্বোধন হবে। প্রথমে হনুমানগঢ়ী মন্দিরে গিয়ে প্রার্থনা, পরে অস্থায়ী রামমন্দিরে পুজো দেবেন প্রধানমন্ত্রী। তার পরে ভূমিপুজোর উদ্বোধন করবেন। দু’দিন আগে থেকেই অবশ্য বৈদিক মন্ত্রোচ্চারণের মধ্য দিয়ে পুজোর প্রস্তুতি পর্ব শুরু হয়ে যাবে।

গোটা অনুষ্ঠানের জন্য অযোধ্যায় দু’ঘণ্টা কাটাবেন মোদী। বারাণসী থেকে পুরোহিতেরাও পৌঁছচ্ছেন অযোধ্যায়। শাস্ত্র বলছে, প্রায় সাড়ে চারশো বছর পর রাম মন্দির তৈরির জন্য ভূমি পুজোর শুভ তিথি পাওয়া গিয়েছে। সেই তিথি ৫ আগস্ট। তারই জোরদার প্রস্তুতি চলছে অযোধ্যায়।

ওইদিন অযোধ্যায় অকাল দিওয়ালির ছবি দেখা যাবে, যার সাক্ষী থাকবেন দেশবাসী। ভূমিপুজোয় আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে সব রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের। তবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, পিনারাই বিজয়নরা সে দিন যাবেন কি না, কিংবা কংগ্রেসের মুখ্যমন্ত্রীরা কী অবস্থান নেবেন, তা নিয়েও জল্পনা শুরু হয়েছে।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ