বাঁকুড়া এবং তমলুক: পুরোহিতদের ‘ভাতা’ দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সঙ্গে মিলবে আগামিদিনে একটা করে ঘর। বিধানসভা ভোটের আগে পুরোহিতদের জন্যে কল্পতরু মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর এই ঘোষণার পরেই রাজ্য জুড়ে ‘ধন্যবাদ জ্ঞাপন’ কর্মসূচী নিলেন পশ্চিমবঙ্গ সনাতন ব্রাহ্মণ ট্রাস্টের সদস্যরা।

আজ শনিবার বাঁকুড়ার জঙ্গলমহলের সারেঙ্গা ও কোতুলপুরে আলাদা আলাদাভাবে ওই সংগঠনের সদস্যরা মুখ্যমন্ত্রী ও রাজ্য সরকারকে ‘ধন্যবাদ ও অভিনন্দন’ জানিয়ে মিছিল করলেন। প্রসঙ্গত, সম্প্রতি রাজ্য সরকার পুরোহিতদের বিশেষ ‘ভাতা’ দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছেন।

প্রশাসন সূত্রে খবর, প্রাথমিকভাবে প্রথম পর্যায়ে রাজ্যের সাড়ে আট হাজার পুরোহিত এই ভাতা পাবেন। পরবর্তীকালে বাকিরাও এই প্রকল্পের আওতাভূক্ত হবেন। একই সঙ্গে আর্থিক দিক থেকে দুর্বল পুরোহিতদের বাংলার আবাস যোজনা প্রকল্পে বাড়ি তৈরি করে দেওয়া হবে বলে জানানো হয়েছে।

যদিও সারেঙ্গা ও কোতুলপুরে ধন্যবাদ জ্ঞাপন মিছিল থেকে সনাতন ব্রাহ্মণ ট্রাস্টের পক্ষ থেকে পুরোহিতদের স্বাস্থ্য সাথী প্রকল্পে যুক্ত করা, পঞ্চম শ্রেণী থেকে সংস্কৃত ভাষাকে পাঠ্য তালিকায় করার দাবিও ওঠে। বাঁকুড়ার পাশাপাশি পূর্ব মেদিনীপুর জেলার মেচেদাতেও মিছিল হয়।

মেচেদায় রাজ্য অফিস থেকে পশ্চিমবঙ্গ সনাতন ব্রাহ্মণ ট্রাস্টের রাজ্য সম্পাদক শিধর মিশ্র নেতৃত্বে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে ধন্যবাদ যাপন কর্মসূচি পালন করেন। আবির মেখে মিষ্টিমুখ করে বাদ্যঘন্টা শঙ্খ বাজিয়ে মেআপদা এলাকায় একটি বিজয় মিছিল বের করেন তাঁরা।

জেলার প্রতিটি ব্লকেই এই কর্মসূচি পালিত হয় । যদিও এই বিষয়ে বিজেপির তমলুক সাংগঠনিক সভাপতি নবারুণ নায়েক বলেন, “সামনে বিধানসভা ভোট। তাই রাজনৈতিক ফায়দা তোলার জন্য করছে। মুখ্যমন্ত্রী অনেক প্রকল্প ঘোষণা করেছে। কিন্তু কোনটাই বাস্তবে কাজ হয়নি। তাই গরিব ব্রাহ্মণদের নিয়ে রাজনীতি শুরু করেছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সরকার, এমনটাই অভিযোগ বিজেপির।

প্রসঙ্গত, কিছুদিন আগেও মুখ্যমন্ত্রী বাংলার পুরোহিতদের বিভিন্ন দাবি-দাওয়া মেনে নিয়েছেন। এবং কোলাঘাটে ব্রাহ্মনদের জন্য জমি প্রদান করেছেন।

এই খুশির খবরে পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সনাতন ব্রাহ্মণ ট্রাস্ট তমলুক ১ ব্লক কমিটির এর উদ্যোগে মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে ধন্যবাদ জ্ঞাপন মিছিল তমলুক ব্লক এর রাধামণি হাইরোড থেকে রাধামনি বাজার পর্যন্ত মিছিল হয়।

শনিবার এই মিছিলের নেতৃত্ব দেন রাজ্য কমিটির সদস্য তথা তমলুক ব্লকের পর্যবেক্ষক দেবপ্রসাদ মহাপাত্র সহ অন্যান্যরা। রাজ্য সরকারের এই ধরনের ঘোষনায় খুশি ব্রাহ্মণ সম্প্রদায়ের মানুষজন।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।