পূর্ব বর্ধমানঃ  করোনাকে কার্যত সঙ্গী করেই সোমবার থেকে পুরোপুরি ছন্দে ফেরার তীব্র চেষ্টা শুরু হল গোটা পূর্ব বর্ধমান জেলা জুড়েই। সোমবার থেকে কন্টেনমেণ্ট জোন ছাড়া সমস্ত ক্ষেত্রকেই খুলে দেওয়া হয়। আর এরপরেই এদিন কার্যত বাড়ির বাইরে পা রাখতে পেরে স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলেছেন আমজনতা। অন্যদিকে, সোমবার পূর্ব বর্ধমানের জেলাশাসক বিজয় ভারতী জানিয়েছেন, ক্রমশই কমছে ভিন রাজ্য থেকে পরিযায়ী শ্রমিক আসার বিষয়টি।

তিনি জানিয়েছেন, রবিবার পর্যন্ত পূর্ব বর্ধমানে মোট ৯৬টি ট্রেন ঢুকেছে। যার মধ্যে কেবলমাত্র প্রায় ৮ হাজারের কাছাকাছি পরিযায়ী শ্রমিক এসেছেন ট্রেনে। এছাড়াও বাস বা অন্য মাধ্যমেও প্রচুর পরিযায়ী শ্রমিক জেলায় এসেছেন। জেলাশাসক জানিয়েছেন, এখনও পর্যন্ত সাকুল্যে প্রায় ১২ হাজারের কাছাকাছি পরিযায়ী শ্রমিক জেলায় এসেছেন। তিনি জানিয়েছেন, এখনও পর্যন্ত পরিযায়ী শ্রমিকদের যে পরিসংখ্যান তাঁরা পাচ্ছেন তাতে গোটা জেলায় ২৫ হাজারের বেশি পরিযায়ী শ্রমিক নেই।

তিনি জানিয়েছেন, ফলে আস্তে আস্তে পরিযায়ী শ্রমিক আসা কমছে। একইসঙ্গে গত ২দিনের পর সোমবার দুপুর পর্যন্ত জেলায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যাও কমছে। এটা অনেকটাই স্বস্তির কারণ। তিনি জানিয়েছেন, গত ২৩ মার্চ থেকে রবিবার পর্যন্ত জেলায় মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৯৬। এদের মধ্যে ৫০জন সক্রিয়। ইতিমধ্যেই ৪৬ জনকে হাসপাতাল থেকে ছুটি দেওয়া হয়েছে।

সোমবার নতুন করে ৪ জন আক্রান্ত হবার খবর মিলেছে। এদের মধ্যে পূর্বস্থলী ১-১জন, কালনা১- এর ১জন এবং খণ্ডঘোষের ২জন রয়েছেন। তাঁদের এদিনই দুর্গাপুরের কোভিড হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। অন্যদিকে, এদিন সন্ধ্যায় জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে, পূর্ব বর্ধমান জেলায় মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৯৮ জন।

কলকাতার 'গলি বয়'-এর বিশ্ব জয়ের গল্প