চন্ডীগড়: প্রায় প্রতিদিনই কমছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। ফলে এবার কড়াকড়িতে শিথিলতা আনতে উদ্যোগী হল পঞ্জাব সরকার। রাজ্যের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে পয়লা জানুয়ারি থেকে তুলে নেওয়া হচ্ছে নাইট কার্ফু। তবে করোনা বিধিনিষেধ জারি থাকবে।

রাত ১০টা থেকে ভোর ৫টা পর্যন্ত যে বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছিল রাজ্য জুড়ে, তা তুলে নেওয়া হবে বছরের প্রথম দিন থেকে বলে জানানো হয়েছে। যদিও প্রতিটি হোটেল, রেস্তোঁরা ও অনুষ্ঠান বাড়িকে সাড়ে নটার মধ্যে বন্ধ করে দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। বাড়ির ভেতরে অনুষ্ঠান হলে ১০০ জন ও বাইরে খোলা জায়গায় অনুষ্ঠান হলে ২৫০ জনের জমায়েত হতে পারে বলে জানিয়েছে পঞ্জাব সরকার।

২৫শে নভেম্বর এক বিবৃতি জারি করে পঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী ক্যাপ্টেন অমরিন্দর সিং জানান, রাত ১০টা থেকে সকাল ৫টা পর্যন্ত পঞ্জাবে লাগু থাকবে নাইট কার্ফু। এই সময়ের মধ্যে জরুরি কাজ ছাড়া কেউই বাড়ির বাইরে বেরোতে পারবেন না। একইসঙ্গে মাস্ক পরা নিয়েও বেশ কড়া পদক্ষেপ রাজ্য সরকারের।

করোনার সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়া রুখতে মাস্কের বিকল্প নেই, একথা বারবার বলে এসেছেন বিশেষজ্ঞরা। কেন্দ্রীয় সরকার তো বটেই রাজ্যে-রাজ্যে মাস্ক পরা নিয়ে সচেতনতামূলক প্রচার চালানো হচ্ছে। পঞ্জাবে মাস্ক না পরে বাইরে বেরোলে আগেই জরিমানা করা হতো। এবার সেই জরিমানার পরিমাণ দ্বিগুণ করা হয়। করোনা মোকাবিলায় পয়লা ডিসেম্বর থেকে এই নিয়মগুলি জারি করা হবে বলে জানানো হয়। পঞ্জাবে মাস্ক না পরলে আগে ৫০০ টাকা জরিমানা করা হতো। সেই জরিমানার অঙ্ক বেড়ে করা হয় ১ হাজার টাকা।

এদিকে, দেশে করোনার নতুন স্ট্রেনের খোঁজ মিলেছে। ব্রিটেন থেকে আসা যাত্রীদের মধ্যে ৭ জনের শরীরে করোনাভাইরাসের নতুন স্ট্রেনের হদিশ মিলেছে। তবে ব্রিটেনে যে নতুন করোনার স্ট্রেনের হদিশ মিলেছে সেটা ভয়ঙ্কর।

আগের থেকে ৭১ শতাংশ বেশি সংক্রামক। তবে তার উপসর্গ তেমন ভয়ঙ্কর নয়। এমনই দাবি করেছেন সিসিএমবির ডিরেক্টর ডঃ রাকেশ মিশ্র। তিনি জানিয়েছেন, করোনা যে নতুন স্ট্রেন দেখা দিয়েছে সেটার উপর সমানভাবেই সক্রিয় হবে করোনা ভ্যাকসিন।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।