চণ্ডীগড়: দুই খলিস্তানি জঙ্গিকে গ্রেফতার করল পাঞ্জাব পুলিশের স্পেশাল ফোর্সের একটি দল৷ এই দু’জন জঙ্গির মধ্যে একজন মহিলা। তারা পাঞ্জাব-সহ সারা দেশেই নতুন করে সন্ত্রাস সৃষ্টির ছক কষছিল বলে সূত্রের খবর।

দুই সন্ত্রাসবাদীর হিটলিস্টে ছিলেন বেশ কয়েকজন হেভিওয়েট হিন্দুত্ববাদি নেতা। সন্ত্রাসবাদিদের মধ্যে একজন ফরিদকোটের সুরিন্দর কৌর লুধিয়ানার একটি বেসরকারি হাসপাতালে নার্সের কাজ করতেন। ধৃত অপর এক জঙ্গির নামও প্রকাশ করেছে পাঞ্জাব পুলিশ। হোশিয়ারপুরের লখবীর সিং দুবাইতে গাড়ি চালাতেন।

পুলিশ সূত্রে খবর, লখবীর এবং সুরিন্দরের বন্ধুত্ব শুরু হয় ফেসবুকের হাত ধরে। আর এরপরেই ধীরে ধীরে তাঁরা যুক্ত হয়ে পড়েন জঙ্গি কার্যকলাপের সঙ্গে। পাঞ্জাবের সাইবার ক্রাইম শাখা গত কয়েকমাস ধরেই এই যুগলের ‘সন্দেহজনক গতিবিধির’ উপর নজর রাখছিল। ধৃতদের জেরা করে জানা গিয়েছে পাঞ্জাবে নতুন করে সন্ত্রাস জিইয়ে রাখতেই এই দুই জঙ্গিকে বেছে নেওযা হয়।

এই কাজ করতে তাদের কাছে বিদেশ থেকেও অর্থ সাহায্য আসত বলে জানতে পেরেছে পুলিশ। বিদেশে থাকা বেশ কিছু খলিস্তানি জঙ্গি সংগঠনের কাছ থেকে এই অর্থ সাহায্যের প্রমাণও পেয়েছে তাঁরা।খলিস্তানি জঙ্গিদের হিটলিস্টে বহু হিন্দুনেতার নাম উঠে আসার পর থেকেই নড়েচড়ে বসেছে পুলিশ-প্রশাসন।
তবে, তদন্তের স্বার্থে হিন্দুত্ববাদি নেতাদের নাম প্রকাশ করতে অস্বীকার করেছে পুলিশ।

পুলিশের তরফ থেকে জানানো হয়, ‘ধৃতদের থেকে বহু হিন্দু নেতাদের নাম পাওয়া গিয়েছে যাদের উপর নাশকতা হামলা চালানোর পরিকল্পনা ছিল। কিন্তু নেতাদের নাম সামনে আনলে তা তদন্ত প্রভাবিত করতে পারে।’ধৃত দুই জঙ্গিকে জেরা করে আরও বড় চাঁইয়ের খোঁজ চালাচ্ছে পুলিশ।