চেন্নাই: রোহিত শর্মার মুম্বই ইন্ডিয়ান্সের বিরুদ্ধে আজ কঠিন চ্যালেঞ্জা লোকেশ রাহুলের পঞ্জাব কিংসের৷ শুরুটা জয় দিয়ে হলেও তারপর হারের হ্যাটট্রিক করে পাঁচবারের চ্যাম্পিয়ন মুম্বইয়ের বিরুদ্ধে মাঠে নামল পঞ্জাব৷ শেষ তিন ম্যাচ হেরে পয়েন্ট টেবলে সবার নিচে প্রীতি জিন্টার দল৷ টস জিতে মুম্বইয়ের বিরুদ্ধে প্রথমে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত পঞ্জাবের৷ দলে এদিন একটি পরিবর্তন করেছে পঞ্জাব কিংস৷ মরুগান অশ্বিনের পরিবর্তে দলে এসেছে লেগ-স্পিনার রবি বিষ্ণুই৷

আর প্রথম ম্যাচে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোরের কাছে হেরে পরের দু’টি ম্যাচ জিতে কামব্যাক করেছিল মুম্বই ইন্ডিয়ান্স৷ কিন্তু আগের ম্যাচে দিল্লি ক্যাপিটালসের কাছে হার হজম করতে হয়েছে রোহিত অ্যান্ড কোং৷ এর আগের দু’টি ম্যাচে অল্প রানের পুঁজি নিয়ে জিতলেও দিল্লির বিরুদ্ধে শেষরক্ষা হয়নি মুম্বইয়ের৷ দিল্লি বোলারদের সামনে দেড়শো রানের আগেই শেষ হয়ে গিয়েছিল পাঁচবারের চ্যাম্পিয়নরা৷ রান তাড়া করে জিততে সমস্যা হয়নি দিল্লির৷ এর আগের দু’টি ম্যাচে কলকাতা নাইট রাইডার্স ও সানরাইজার্স হায়দরাবাদের বিরু্দ্ধে দেড়শো রানের পুঁজি নিয়ে মুম্বইকে জিতিয়েছিলেন বোলাররা৷ কিন্তু শিখর ধাওয়ানের দুরন্ত ব্যাটিংয়ের সামনে ১৩৭ রান কাজ আসেনি৷ চার ম্যাচের মধ্যে দু’টি জিতে ও দু’টি হেরে চার নম্বরে থেকে আজ পঞ্জাবের বিরুদ্ধে মাঠে নামল রোহিত শর্মার দল৷

পঞ্জাব প্রথম তিনটি ম্যাচ খেলেছে মুম্বইয়ের ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামে৷ কিন্তু আগের ম্যাচটি খেলেছে চিপকে৷ এদিন টস জিতে পঞ্জাব কিংস ক্যাপ্টেন লোকেশ রাহুল বলেন, ‘যখন আমরা দ্রুত কয়েকটি উইকেট হারায় তখন আমাদের স্মার্ট ক্রিকেট খেলতে হবে৷ এখানে ১৭০ রান করতেই হবে৷ আশা করি, আগের ম্যাচ থেকে আমরা এটা শিখেছি৷ পিচে আর্দ্রতা রয়েছে৷ পরের দিকে ব্যাট করা কিছুটা সুবিধা হবে৷ দলে একটি পরিবর্তন হয়েছে৷ মরুগান অশ্বিনের পরিবর্তে দলে এসেছে রবি বিষ্ণুই৷’

পঞ্জাব কিংস একাদশ: ময়াঙ্ক আগরওয়াল, লোকেশ রাহুল (ক্যাপ্টেন), ক্রিস গেইল, দীপক হুডা, নিকোলাস পুরান, শাহরুখ খান, ফাবিয়েন আলেন, মোজেস হেনরিক, রবি বিষ্ণুই, মহম্মদ শামি ও অর্শদীপ সিং৷

মুম্বই ইন্ডিয়ান্স একাদশ: কুইন্টন ডি’কক, রোহিত শর্মা (ক্যাপ্টেন), সূর্যকুমার যাদব, ইশান কিশান, হার্দিক পান্ডিয়া, কাইরন পোলার্ড, ক্রুনাল পান্ডিয়া, রাহুল চাহার, জয়ন্ত যাদব, জসপ্রীত বুমরাহ ও ট্রেন্ট বোল্ট৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.