নয়াদিল্লি: ফের নাশকতার ছক কষছে পাকিস্তানের জঙ্গিরা। গোয়েন্দা সংস্থা বুধবার এই তথ্য জানিয়েছে। পঞ্জাব লাগোয়া অঞ্চলগুলিতে ইতিমধ্যে কমলা সতর্কতা জারি করা হয়েছে। এর আগেও গোয়েন্দা সংস্থা তথ্য দিয়েছিল যে ভারতীয় নিরাপত্তা ঘাঁটিতে হামলা চালানোর চেষ্টা করছে জঙ্গিরা।

এদিন গোয়েন্দা সংস্থার তরফে জানানো হয়েছে, পাকিস্তানের বিরাট একটি জঙ্গিদল ভারতের মাটিতে হামলার ছক নিয়ে ঢুকেছে। নতুন করে এই তথ্য দেওয়ার পরই নিরাপত্তা সংস্থাগুলি সেনা ঘাঁটিগুলিতে কমলা সতর্কতা জারি করেছে। পাঠানকোট, জম্মু, শ্রীনগর, অবন্তিপুরাতে জারি হয়েছে হাই অ্যালার্ট। লাল সতর্কতার পরেই আসে কমলা সতর্কতা।

কেন্দ্রের সূত্রে খবর, “পঞ্জাব এবং জম্মু লাগোয়া সেনা ঘাঁটিগুলিতে জারি হয়েছে হাই অ্যালার্ট। পাঠানকোট এবং জম্মুতে ভারতীয় বায়ুসেনার ঘাঁটিগুলিতেও রয়েছে কমলা সতর্কতা। বুধবার সকালেই এই তথ্য পাওয়ার পর সবরকম ব্যবস্থা নিয়েছে সেনা ঘাঁটিগুলিকে সুরক্ষিত রাখার জন্য।”

কাশ্মীরে ৩৭০ ধারা বিলোপের পর থেকেই জঙ্গি হামলার সম্ভাবনার উল্লেখ পেয়ে একাধিক তথ্য পাওয়া গিয়েছে। নরেন্দ্র মোদী সরকারের দ্বিতীয় দফায় দায়িত্ব নেওয়ার পরই অগস্টের ৫ তারিখ কাশ্মীরের স্পেশাল স্ট্যাটাস মুছে ফেলার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

এর আগে বিদেশমন্ত্রক জানিয়েছে, চলতি বছরে দু’হাজারেরও বেশি বার যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘন করেছে পাকিস্তান। নিশানা করেছে সাধারণ মানুষকে। অথচ ভারতের বিরুদ্ধেই মানবাধিকার লঙ্ঘনের কালি ছেটাচ্ছে পাকিস্তান। প্রায় একুশ জন সাধারণের মৃত্যু হয়েছে, এমনটাই জানাচ্ছে ভারতের বিদেশ মন্ত্রক। পাশাপাশি পাকিস্তানের একাধিক অনুপ্রবেশ ও যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘনের কথাও উল্লেখ করা হয় বিদেশমন্ত্রকের তরফে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।