লন্ডন: দেশ ছেড়ে বিদেশের মাটিতে ওদের বাস৷ কিন্তু মন পড়ে ঘরে৷ পুলওয়ামায় জঙ্গি হামলার পর গোটা দেশ যখম মুহ্যমান তখন বিদেশে বসে ওরাও প্রস্তুত বদলা নিতে৷ তাই তো শহিদ সিআরপিএফ জওয়ানদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে সাত সমুদ্র তের নদী দূরে বসেও মোমবাতি হাতে হাঁটলেন লন্ডনের প্রবাসী ভারতীয়রা৷

তেরঙ্গা পতাকায় মোড়া লন্ডনের পাকিস্তানি দূতাবাসের সামনের রাস্তা৷ সেখানেই কয়েক হাজার ভারতীয়র স্লোগানে মুখরিত বন্দে মাতরম৷ এক সঙ্গে সবাই গলা ফাটাচ্ছে দেশের জন্য৷ কেন জঙ্গিদের মদত দিচ্ছে পাকিস্তান৷ জবাব চাইছে প্রবাসী ভারতীয়রা৷ দু হাতে জাতীয় পতাকা৷ মুখে অনবরত বলে চলেছেন ‘পাকিস্তান মুরদাবাদ-হিন্দুস্তান জিন্দাবাদ৷’

দেশের জন্য আবেগ৷ তা সে পৃথিবীর যে প্রান্তের মানুষেরই হোক৷ দেশ আঘাত পেলে প্রত্যাঘ্যাতের চেষ্টায় থাকেন দেশপ্রেমীরা৷ এক্ষেত্রেও তারই আভাস৷ পুলওয়ামা হামলার পরিপ্রেক্ষিতে চির শত্রু দেশের দূতাবাসের সামনে বিক্ষোভ৷ ফলে পরিস্থিতি যেকোনও সময় উত্তপ্ত হতে পারে৷ এই ভেবে স্থানীয় পুলিশ প্রশাসনের তরফে নিরাপত্তা ছিল চোখে পরার মত৷ বিক্ষোভ তো হল তার নিজস্ব ঢঙে৷ দেশের পতাকা হাতে তখন চোখে জল প্রবাসীদেরও৷ তাদের প্রশ্ন আর কত? কেন সন্ত্রাস নির্মূলে পাকিস্তান সহায়তার বদলে তাতে মদত দেয়?

গত বৃহস্পতিবার কাশ্মীরের পুলওয়ামার সেনা কনভয় আত্মঘাতী জঙ্গি বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে৷ শহিদ হন ৪০ জন আধা সেনা জওয়ান৷ হামলার পেছনে পাক-যোগ স্পষ্ট৷ দেশ জুড়ে ছড়িয়ে পড়ে ক্ষোভের আগুন৷ বদলার দাবি ওঠে গোটা ভারতজুড়ে৷ আন্তর্জাতিক স্তরেও সন্ত্রাসী হামলার শিকার ভারতের পাশে দাঁড়ায় বেশিরভাগ দেশ৷ ভারতের মাটিতে ক্ষোভের আঁচ গিয়ে লেগেছে লন্ডনেও৷ দেশ থেকে বিদেশ, প্রতিটি ভারতীয়র দাবি মরবো নয় মারবো-শেষ দেখে ছাড়বো৷