নয়াদিল্লি: ইঙ্গিত মিলেছিল বুথ ফেরত সমীক্ষাতেই৷ ফল ঘোষণা শুরু হতেই বিজেপি ঝড়ের আভাস পেল দেশ৷ তবে তার আগে থেকেই বিজেপির পার্টি অফিসগুলির সামনে বিজয়োৎসবের আয়োজন করা হয়৷

উল্লাস ও জয় উদযাপনের উপকরণ সাজিয়ে রাখার পাশাপাশি, চলল গেরুয়া শিবিরের মঙ্গলের জন্য প্রার্থনা৷ চলল যজ্ঞ, পুজোপাঠ৷ রীতিমত আগুন জ্বালিয়ে হোমকুণ্ড তৈরি করে যজ্ঞ করা হল দিল্লি বিজেপির পার্টি অফিসের সামনে৷

ফল ঘোষণা শুরু হয়েছে৷ ওঠা নামা করছে রাজনৈতিক পারদ৷ সেই পারদকে সকাল বেলাতেই একধাপ চড়িয়ে দিল বিজেপির এই হোম যজ্ঞ৷ এই পুজোই যেন বুঝিয়ে দিয়ে গেল ফের মসনদে বসতে চলেছেন মোদী৷

আরও পড়ুন : মোদীকে স্বাগত জানাতে ২০,০০০ কর্মীকে আমন্ত্রণ বিজেপি হেডকোয়ার্টারে

মিষ্টির রংয়েও গেরুয়া৷ প্রস্তুতি উপকরণ হিসেবে রাখা হয়েছে আতসবাজিও৷ সব মিলিয়ে তৈরি এনডিএ শিবির৷ ভাল ফলের কামনায় দলের সদর কার্যালয়ের সামনে সকাল থেকেই শুরু হয়েছে রাজসূয় যজ্ঞ।

৩০৬ টি আসন নিয়ে ক্ষমতায় আসছে সেই বিজেপি৷ টাইমস নাউয়ের সমীক্ষা বলেছিল মার্জিন কমেছে, তবু মোদী-শাহ ম্যাজিক কাজ করে গিয়েছে এবারও৷ ২০১৪ সালে কাজ করেছিল প্রতিষ্ঠান বিরোধিতার হাওয়া৷ আর এবার প্রতিষ্ঠানের পক্ষেই রায় দিয়েছে দেশ৷ প্রো ইনকামবেন্সি ফ্যাক্টর কাজ করে গিয়েছে ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনে, এমনই জানিয়েছিল টাইমস নাও৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।