স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতাঃ অ্যাডভোকেট জেনারেলের সঙ্গে বচসার জেরে বিচারপতি সমাপ্তি চট্টোপাধ্যায়ের এজলাস বয়কট করেছিলেন সরকারি আইনজীবীরা। উল্লেখ্য হালিশহর পুরসভার মামলা চলাকালীন বচসায় জড়ান বিচারপতি ও অ্যাডভোকেট জেনারেল। জটিলতার সূত্রপাত সেখান থেকেই।

এরপর সোমবার দক্ষিণ দিনাজপুরের গঙ্গারামপুর পৌরসভার চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে আগামীকাল অনাস্থা প্রস্তাব এনে কলকাতা হাইকোর্টের দ্বারস্থ হন তিন কাউন্সিলর। বিচারপতি সমাপ্তি চট্টোপাধ্যায়ের এজলাসে ওঠে মামলাটি। বিচারপতি চট্টোপাধ্যায় দুপুর তিনটের সময় সেই মামলার শুনানি গ্রহণ করবেন বলে জানান।

মঙ্গলবার সেই বয়কট প্রত্যাহার করলেন সরকারি আইনজীবীরা৷ তাঁরা জানিয়েছেন, আদালতের কাজকর্ম আটকে সাধারণ মানুষের অসুবিধা করতে চান না তাঁরা৷ এই জন্যই যা ভুল বোঝাবুঝি ছিল, তা মিটিয়ে নিয়েছেন তাঁরা৷ আইনের আওতাধীন থেকে তাঁরা কাজ করবেন বলে সম্মত হয়েছেন৷

আরও পড়ুন : আকাশ ছোঁবেন শ্রী রাম, ছাড়িয়ে যাবে বিশ্বের দীর্ঘতম মূর্তির উচ্চতা

তবে সোমবার সরকারপক্ষের আইনজীবী ভাস্কর প্রসাদ বৈশ্য জানিয়ে ছিলেন, যে বিচারপতি সমাপ্তি চট্টোপাধ্যায় এজলাস সমস্ত সরকারি আইনজীবী বয়কট করেছেন এবং এ বিষয়ে প্রধান বিচারপতির কাছে চিঠি দিয়ে তারা অভিযোগ জানিয়েছেন বিচারপতি সমাপ্তি চট্টোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে। আপাতত এই নিয়েই জটিলতা তৈরি হয়েছে কলকাতা হাইকোর্টে।

সরকারি আইনজীবীদের পক্ষ থেকে জানানো হয় “Court is Temple of Justice. A judge cannot use this Temple of Justice as political platform by making comment like political leader… “। এই মর্মেই চিঠি দেন সব সরকারি আইনজীবীরা। সমাপ্তি চট্টোপাধ্যায়কে বয়কট করার ডাক দেন তাঁরা।

আরও পড়ুন : ভারতে হামলার ছক, লস্কর-আইসিসকে পথ দেখাচ্ছে পাক সেনা

এই প্রসঙ্গে সব্যসাচী দত্তের মামলায় বনগাঁ নিয়ে বিচারপতির মন্তব্যকে হাতিয়ার করেন সরকারি আইনজীবীরা। তাঁদের অভিযোগ সব্যসাচী দত্তের মামলার সময়ে বনগাঁ পুরসভার মামলাটি ফাইল করাই হয়নি। সরকারি আইনজীবীদের বক্তব্য কিভাবে এটা হতে পারে? বিচারপতি কি মামলার তথ্য আগেই পেয়ে গেলেন, প্রশ্ন তুলেছেন তাঁরা।

উল্লেখ্য কলকাতা হাইকোর্টে বিচারপতির এজলাস বয়কট নতুন ঘটনা নয়। এর আগে, বিচারপতি গিরীশ গুপ্ত ও বিচারপতি কারনানের এজলাসও বয়কট করা হয়েছিল। তবে সেই দুটি ঘটনায় শুধু সরকারি আইনজীবীরা নন, বয়কটে সামিল ছিলেন হাইকোর্টের সব আইনজীবীরাই।

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও