তিমিরকান্তি পতি, বাঁকুড়া: কেন্দ্রের সিএএ ও এনআরসি-র প্রতিবাদ আন্দোলনে মহিলা ফুটবল প্রতিযোগীতাকেই হাতিয়ার করল শাসক তৃণমূল। বাঁকুড়ার রাইপুরের মেলেড়া স্কুল মাঠে একদিনের এই প্রতিযোগীতায় বাঁকুড়া, পুরুলিয়া, ঝাড়গ্রাম ও পশ্চিম মেদিনীপুর মিলে জঙ্গলমহলের এই চার জেলার ৮ টি দল অংশগ্রহণ করে।

রবিবার এই প্রতিযোগীতার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন জেলা যুব তৃণমূলের সভাপতি ও রাইপুর পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি রাজকুমার সিংহ। উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় বিধায়ক বীরেন্দ্রনাথ টুডু, বিশিষ্ট সমাজসেবী সনৎ সিংহ সহ স্থানীয় তৃণমূল নেতৃত্ব।

এদিন এলাকায় সিএএ ও এনআরসি বিরোধী আন্দোলনকে জোরদার করতে সব কটি দলের প্রতিটি খেলোয়াড় ‘নো এনআরসি, নো সিএএ’ ও ‘দিদিকে বলো’ লেখা জার্সি গায়ে মাঠে নামেন। প্রতিযোগীতায় অংশ নেওয়া মহিলা ফুটবল দলের সদস্য সূর্যমনি মাণ্ডি, সঞ্জিতা মাহাতো বলেন, ‘দিদি’ রাজ্যে এনআরসি লাগু হতে দেবেন না বলেছেন। আমরাও খেলার মাধ্যমে ঐ বিলের প্রতিবাদ জানাচ্ছি। একই সঙ্গে তাঁরা বলেন, দিদি তাঁর কথা রেখেছেন। আমাদের মহিলা ফুটবল দলের বেশ কয়েক জন ইতিমধ্যে পুলিশের চাকরিতে নিয়োগ করেছেন। বাকিরাও আগামী জানুয়ারী মাসে নিয়োগ পত্র হাতে পাবেন বলে তাঁরা জানান।

শাসক দলের এই উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন, এলাকাবাসীও শিক্ষক অরবিন্দ মণ্ডল বলেন, একটি স্পর্শকাতর বিষয়কে নিয়ে এই খেলার আয়োজন করা হয়েছে। ঐ আইনে ঠিক কি হতে চলেছে বিষয়টি পরিস্কার নয়। তবে আমাদের দেশের সংস্কৃতি ঐতিহ্য সকলকে নিয়ে চলার কথা বলে। সেবিষয়টি যাতে কোনও ভাবেই নষ্ট না হয় তা সুনিশ্চিত করতে হবে।

আয়োজকদের পক্ষে সনৎ সিংহ বলেন, কেন্দ্রের ‘কালা আইন’ এনআরসি-সিএএ -র প্রতিবাদ জানাতে আমরা মহিলা ফুটবলকেই কাজে লাগিয়েছি। তাঁদের এলাকায় বিজেপির কোনও অস্তিত্ব নেই। ২০২১ এ ফের জঙ্গলমহলে তাঁদের দল ‘লিড দেবে’ বলেও এদিন দাবি করেন তিনি।