স্টাফ রিপোর্টার, বাঁকুড়া: শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তি কিংবা চাকরিক্ষেত্রে আদিবাসী সংরক্ষিত স্থানেও দখলদারি করছে অ-আদিবাসীরা৷ এমন অভিযোগ তুলে সোমবার আন্দোলনে নামলেন অল আদিবাসী সানতাল স্টুডেন্টস অ্যাসোসিয়েশন-এর সদস্যরা৷ এদিন সংগঠনের বাঁকুড়া জেলা কমিটির সদস্যরা বাঁকুড়া শহরে একটি মিছিল করে জেলাশাসকের দফতরে পৌঁছন৷ সেখানে স্মারকলিপিও জমা দেন তাঁরা৷

আরও পড়ুন: হ্যাপি পিল-এর ‘প্রিয়তমা’

রাজ্যের বিভিন্ন কলেজে ভর্তির ক্ষেত্রে ‘সংরক্ষিত আসনে সাধারণ প্রার্থীদের অন্তর্ভূক্তি’র মতো দুর্নীতির অভিযোগ ওঠে এদিনের মিছিল থেকে৷ ঘটনায় যুক্তদের কঠোর শাস্তির দাবিও করেন আন্দোলনকারীরা৷ একই সঙ্গে রাজ্যের সমস্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সংরক্ষণনীতি না লঙ্ঘন করা, চাকুরীক্ষেত্রে সংরক্ষণ নীতি কঠোরভাবে কার্যকর করা, সাঁওতালি মাধ্যমে বিএড কলেজ চালুর দাবি-সহ একাধিক দাবি তোলেন তাঁরা৷

আরও পড়ুন: টেস্ট সিরিজে সচিনের বাজি কুলদীপ

বাঁকুড়া শহরে সেন্ট্রাল বয়েজ হোস্টেল ও লেডিজ হোস্টেলে আদিবাসীদের আসন সংখ্যা বৃদ্ধির দাবিতেও সরব হন তাঁরা। এছাড়া রাজ্যের আদিবাসী হোস্টেলগুলি চালু করা হোক, বাঁকুড়া শহরের কলেজগুলিতে সাঁওতালি ভাষায় পঠনপাঠনের দাবি করা হয়৷ এদিন অভিযোগ ওঠে, টাকা দিয়ে নকল ST সার্টিফিকেট তৈরির একটি বড় চক্র কাজ করছে৷ তাদের খুঁজে বের করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে আন্দোলনকারীরা এদিন সরব হন৷

আরও পড়ুন: বিদেশে যাওয়ার অনুমতি পেলেন কার্তি চিদাম্বরম

আন্দোলনকারীদের তরফে জাহিনা মুর্মু বলেন, ‘‘আমাদের সংরক্ষিত অধিকার থেকে আমাদের বঞ্চিত করা হচ্ছে। বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে সরকারি চাকরির ক্ষেত্রেও আমরা আমাদের অধিকার থেকে বঞ্চিত হচ্ছি৷ এর পিছনে একটি বড়সড় অসাধু চক্র কাজ করছে৷’’ স্মারকলিপি জমা দেওয়ার পর অল আদিবাসী সান্তাল স্টুডেন্টস অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, জেলা প্রশাসন তাদের দাবি পূরণের প্রাথমিক আশ্বাস দিয়েছে৷ তবে দাবি পূরণ না হলে আগামী দিনে বৃহত্তর আন্দোলনের হুঁশিয়ারিও দেন সংগঠনের সদস্যরা।

আরও পড়ুন: ২৮ জুলাই শক্ত করে প্যান্ডেল বাঁধবে তৃণমূল