ওয়াশিংটন: আমেরিকায় পুলিশি বর্বরতা এবং বর্ণ বৈষম্যের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ অব্যাহত রয়েছে। বিক্ষোভকারীদের হুমকি, মার্কিন সমাজে কাঙ্খিত পরিবর্তন না আসা পর্যন্ত এই বিক্ষোভ অব্যাহত থাকবে। এদিকে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের জনপ্রিয়তা গত এক বছরের মধ্যে সর্বনিম্নে পৌঁছেছে। হিলহ্যারিসএক্স’র সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী ট্রাম্পের জনপ্রিয়তা ছয় শতাংশ কমে ৪৪ শতাংশে পৌঁছেছে।

আমেরিকায় শ্বেতাঙ্গ পুলিশের হাতে কৃষ্ণাঙ্গ জর্জ ফ্লয়েডের হত্যাকাণ্ডের পর দেশজুড়ে প্রচণ্ড বিক্ষোভ শুরু হয়েছে। বিক্ষোভকারীরা জানিয়েছেন , মার্কিন সমাজ ও রাষ্ট্রব্যবস্থায় যে বর্ণবাদ ও বর্ণবৈষম্য বিরাজমান রয়েছে তার অবসান ঘটাতে হবে। চলমান বিক্ষোভ আমেরিকার ৫০ বছরের ইতিহাসে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করা হচ্ছে।

বিক্ষোভকারীদের অনেকেই বক্তব্য, এই বিক্ষোভ যখন শুরু হয়েছে তা এখন প্রতিদিনই চলবে। তা ছাড়া তারা চাইছেন, মার্কিন সমাজে সংখ্যালঘুদের সঠিক প্রতিনিধিত্ব প্রতিষ্ঠিত হোক। বিক্ষোভকারীদের অনেকেরই বক্তব্য , বিক্ষোভের পাশাপাশি আরও কি কি করা যায় সেটাই খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

এদিকে আবার সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে, দেশের ৫৬ শতাংশ মানুষই ট্রাম্পের কাজের প্রতি অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন। গত এক বছরে কখনও তার জনপ্রিয়তা এতটা নিচে নামে নি।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বর্ণবৈষম্যের বিরুদ্ধে আন্দোলন শুরুর পর গত সোমবার থেকে শনিবার পর্যন্ত এই সমীক্ষা চালানো হয়েছে। বর্ণবৈষম্য ও করোনাভাইরাস ইস্যু ট্রাম্পের জনপ্রিয়তা হ্রাসে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে এ পর্যন্ত করোনাভাইরাসে সবচেয়ে বেশি মানুষ মারা গিয়েছেন। এছাড়া বর্ণবৈষম্য বিরোধী আন্দোলন ইস্যুতেও বিরূপ মন্তব্য ও আচরণ করে ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়েছেন ট্রাম্প।আগামী ৩ নভেম্বর যুক্তরাষ্ট্রে প্রেসিডেন্ট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এই নির্বাচনের ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রতিদ্বন্দ্বী হলেন জো বাইডেন।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.