ফাইল চিত্র৷

স্টাফ রিপোর্টার, হাওড়া: বিজেপির ডাকা বাংলা বনধের দিনে গাড়ি না চালানোর অপরাধে আন্দুল স্টেশন রোডে বিক্ষোভ৷ কিন্তু এই বিক্ষোভে নেই কোনও উত্তেজিত রব৷ আন্দুল রোড-নিউটাউন রুটের বেশ কয়েকটি বাসের চাকার হাওয়া খুলে দেওয়ার অভিযোগ উঠল শাসকদলের কর্মীদের বিরুদ্ধে। এর প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার সকাল থেকে ওই রুটের গাড়ি চলাচল বন্ধ হয়ে যায়৷

আরও পড়ুন: ‘তিনি মন্ত্রী, যানজট মুক্ত রাস্তা পাওয়া তাঁর অধিকার’

বনধের দিন রাস্তায় গাড়ি নামিয়ে জন-জীবন সচল রাখার আবেদন জানিয়েছিল রাজ্য সরকার। এমনকি বাসের ক্ষতি হলে সাত লক্ষ টাকা পর্যন্ত ক্ষতিপূরণের আশ্বাস দেওয়া হয়েছিল শাসক দলের তরফ থেকে৷ কিন্তু সেই আশ্বাস বাণী দেওয়া সত্ত্বেও আন্দুল স্টেশন রোড বাস স্ট্যান্ডের নিউটাউন রুটের অনেক বাস মালিক রাস্তায় বাস নামাননি৷ ঝামেলার আশঙ্কা থেকেই তারা এই সিদ্ধান্তে উপনীত হয়েচিলেন বলে দাবি করেছেন৷

এই কারণেই বাস স্ট্যান্ডে দাঁড়িয়ে থাকা বাসের চাকার হাওয়া খুলে দিয়ে প্রতিবাদের ঘটনা ঘটেছে। এক্ষেত্রে শাসকদলের অনুগামীদের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠলেও সেই অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছে তৃণমূল। এই নিয়ে এলাকায় ব্যাপক উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। বাস মালিকদের দাবি, বনধের দিন গাড়ি নামানো হলেও বনধ সমর্থকদের শাসানিতে গাড়ি ঘুরিয়ে বাস স্ট্যান্ডে ফিরে আসতে হয় তাদের। তাই ঝামেলার আশঙ্কায় আর তারা গাড়ি বের করতে পারেননি।

অভিযোগ, এর জেরে তৃণমূলের লোকজন এসে গাড়ির হাওয়া খুলে দিয়ে প্রতিবাদ জানায়। ধমকি দিয়ে যায় বলেও অভিযোগ উঠেছে। বাধ্য হয়েই তাই বৃহস্পতিবার সকাল থেকে এই রুটের গাড়ি বন্ধ হয়ে যায়৷ এদিকে সাঁকরাইল কেন্দ্রের তৃণমূল বিধায়ক শীতল সর্দার বলেন, ‘‘কারা এই কাজ করেছে আমার জানা নেই। খোঁজ নেব। গাড়ি যাতে চলে সেই ব্যবস্থাও নেওয়া হবে৷’’

আরও পড়ুন: BREAKING! সুপ্রিম কোর্টের রায়ে আর অপরাধ নয় পরকীয়া

প্রসঙ্গত, ইসলামপুরে ছাত্র মৃত্যুর প্রতিবাদে বুধবার রাজ্যজুড়ে বনধের ডাক দিয়েছিল ভারতীয় জনতা পার্টি৷ সেই বনধকে রুখতে মরিয়া ছিল তৃণমূল কংগ্রেস৷ নির্দেশিকা জারি করে পরিবহণ দফতর৷ রাস্তায় নামানো হয় সরকারি বেসরকারি অতিরিক্ত বাস৷ কিন্তু বনধের বাজারে বাস চালাতে ঝুঁকি তো থেকেই যায়৷ বাসের জানালা ভেদ করে কখনো হয়তো চালকের মাথায় এসে লাগল আস্ত ইঁটের টুকরো৷ তাই এধরণের বিক্ষিপ্ত ঘটনা এড়াতে এবার রাজ্যের পরিবহণ দফতর বাস চালকদের নিরাপত্তা বলয় হিসেবে ‘হেলমেট’ উপহার দেয়৷ বুধবার সকালে এয়ারপোর্টের সামনে মধ্যমগ্রাম গামী একটি সরকারি বাসে দেখা যায় এমনই চিত্র৷ নিরাপত্তার খাতিরে ‘হেলমেট’ পরেই বাস চালান চালক৷