স্টাফ রিপোর্টার, বালুরঘাট: চিকিৎসকের গাফিলতিতে সদ্যজাতের মৃত্যুর ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়াল বালুরঘাট সুপারস্পেশালিটি হাসপাতালে৷ শুধু শিশু মৃত্যুর ঘটনাই নয়। শিশুর মা বৃষ্টি পালকে চড় ও লাথি মারারও অভিযোগ করেছেন পরিবার। ঘটনায় মৃত শিশুর দেহ নিয়ে মুখ্যস্বাস্থ্য আধিকারিকের অফিসে ধর্নায় বসে ওই পরিবার।

কুমারগঞ্জের মুংলিশপুরে বাসিন্দা জয়দেব পাল তার গর্ভবতী স্ত্রীকে প্রসব যন্ত্রণা নিয়ে সোমবার বালুরঘাট সুপারস্পেশালিটি হাসপাতালে ভরতি করান। অভিযোগ প্রসূতি যন্ত্রণায় চিৎকার শুরু করলে কর্তব্যরত চিকিৎসক ডাঃ অরূপ দে তার সঙ্গে দুর্ব্যবহার করেন। তাকে চড় থাপ্পড় ও হাঁটু দিয়ে পেটে আঘাতও করেন বলে পরিবারের অভিযোগ৷ প্রসূতির অবস্থা খারাপ হলে অনেক পরে সিজারের মাধ্যমে সন্তান প্রসব হয়।

অভিযোগ দীর্ঘক্ষণ ধরে চিকিৎসকের দুর্ব্যবহার ও পেটে আঘাতের ফলে সদ্যোজাত সন্তানও অসুস্থ হয়ে পড়ে৷ তাই এসএনসিইউতে স্থানান্তরিত করা হয়৷ সেখানে শিশুটি মারা যায়। ঘটনায় হাসপাতাল চত্বরে উত্তেজনার ছড়ায়। উত্তেজিত পরিবার হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে ঘেরাও করেন।

ঘটনায় জড়িত চিকিৎসকের বিরুদ্ধে শাস্তির দাবি তুলে তারা মুখ্যস্বাস্থ্য আধিকারিকের অফিসেও ধর্নায় বসেন। যদিও পুলিশের প্রচেষ্টায় প্রায় ঘণ্টা তিনেক বাদে বিক্ষোভ উঠিয়ে নেন তাঁরা। ঘটনায় অভিযুক্ত ডাঃ অরূপ দে কে বালুরঘাট সুপারস্পেশালিটি হাসপাতাল থেকে ডিটেলমেন্টে গঙ্গারামপুর হাসপাতালে বদলি করেছে জেলা স্বাস্থ্য দফতর।

মুখ্যস্বাস্থ্য আধিকারিক ডাঃ সুকুমার দে জানিয়েছেন, ঘটনাটি খুবই দুঃখজনক। ঘটনায় অভিযুক্ত চিকিৎসককে অন্যত্র বদলি করে তার বিরুদ্ধে উচ্চস্তরীয় তদন্ত শুরু করা হয়েছে। পাশাপাশি সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ডের দায়িত্বে থাকা অন্যান্য কর্মীদেরও জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে বলে তিনি জানিয়েছেন।