কলকাতা:  অভিযোগ, প্রমান ছাড়াই মাওবাদী ঘনিষ্ঠ কিছু বুদ্ধিজীবী জড়িত প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে খুনের ষড়যন্ত্রে৷ শুধু তাই নয়, গত বছর পুনের কাছে ভীমা কোরেগাঁওতে দলিতদের জমায়েতে হিংসাত্মক পরিবেশ তৈরি করার পিছনেও তারা জড়িত৷ ২০০ বছর আগে পেশোয়া বনাম ব্রিটিশদের মধ্যে সংঘর্ষে পেশোয়ার বিপক্ষে গিয়েছিলেন ভীমার দলিতরা৷ সেই ঘটনার বর্ষপূর্তি ঘিরে গতবছর ছড়ায় তীব্র হিংসা৷

এই সব ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে মঙ্গলবার দেশজুড়ে চলে ধরাপকড়৷ তাতে গ্রেফতার করা হয়েছে মাওবাদী ঘনিষ্ঠ কবি ভারাভারা রাওকে। ৭৮ বছর বয়সী ভারাভারা-কে গ্রেফতারের ঘটনায় দেশ জুড়ে সমালোচনা শুরু হয়েছে। ঘটনার জেরে নিন্দের ঝড় ওঠে বিভিন্ন মহলে। প্রতিবাদে সরব হয়েছেন বহু বুদ্ধিজীবী৷ তাঁদের অভিযোগ, কোনওরকম প্রমাণ ছাড়াই অন্যায় ভেবে গ্রেফতার করা হয়েছে তাঁকে।

দলিত শ্রেণীর জন্য নানা কল্যাণজনক কাজে যুক্ত ছিলেন অধ্যাপক ভারভারা রাও। ক্ষোভ প্রকাশ করেন বিশিষ্ট লেখিকা অরুন্ধতী রায়। ‘সরকার বিরোধী’ কার্যকলাপের জন্য একই সঙ্গে আইনজীবী সুধা ভরদ্বাজকে গ্রেফতার করা হয়েছে হরিয়ানার ফরিদাবাদ থেকে। গ্রেফতার হয়েছেন দিল্লির গৌতম নওলাখা এবং মুম্বইয়ের ভার্নন গঞ্জালভেস। আরও কয়েকজন সরকার বিরোধী বুদ্ধিজীবী ও সমাজকর্মীকে পুলিশ গ্রেফতার করতে পারে বলে অনুমান করা হচ্ছে।

কেন্দ্রীয় সরকারের এই পদক্ষেপের রেশ ছড়িয়ে পড়েছে বাংলাতেও। প্রতিবাদ জানিয়ে মুখ খুলেছেন বাংলার শিল্পী-সাহিত্যিকরা। কেউ আবার নীরব থেকেছেন।

শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায় বলেন, “খবরটা শুনে স্তম্ভিত হয়েছি। সরকার গণতন্ত্রের বিরোধিতা করছে। মত প্রকাশের স্বাধীনতা থাকছে না। খুবই নিন্দেজনক ঘটনা।”

শুভাপ্রসন্ন বলেন, “যাঁরা প্রকৃতপক্ষে দেশপ্রেমিক তাঁদের টার্গেট করা হচ্ছে। ভয়ঙ্কর সময়ের মধ্যে দিয়ে আমরা চলেছি। একটা ঘৃণ্য চক্রান্ত চলছে। আশা করি সধারণ মানুষ এর প্রতিবাদে মুখর হবেন।”

কলকাতায় অমিত শাহর সভায় উপস্থিত থাকা বুদ্ধদেব গুহ অবশ্য বলেন, “এ ব্যাপারে আমার কিছু বলার নেই। আমি সামান্য লেখক। রাজনীতির মধ্যে থাকতে চাই না। আমাকে মার্জনা করবন।”

আবুল বাশার বলেন, “উপযুক্ত প্রমাণ ছাড়া ভারাভারা রাওকে গ্রেফতার করা উচিৎ হয়নি। একটা ফ্যাসিজম চলছে দেশজুড়ে। মানুষের স্বাধীনতাকে হস্তক্ষেপ করা হচ্ছে। ন্যাক্কারজনক ঘটনা। আমার নিন্দে করার ভাষা নেই। দলিত শ্রেণীর ওপর অত্যাচার চলছে। সর্বস্তরের শিল্পী-সাহিত্যিকদের একজোট হয়ে প্রতিবাদ করা উচিৎ।”