গুরুগ্রাম: ফের স্পা সেন্টারের আড়ালে রমরমিয়ে চলা দেহব্যবসার পর্দাফাঁস করল পুলিশ৷ সোমবার গুরুগ্রামের পালম বিহারে আনসাল প্লাজা মলে একটি স্পা সেন্টার থেকে দেহব্যবসায় জড়িত থাকার অভিযোগে প্রায় ২৫ জনকে গ্রেফতার করে পুলিশ৷ এদের মধ্যে ১৫ জন মহিলা বলে জানা গিয়েছে৷ সকলের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে৷

সূত্রের খবর, পুলিশ ওই স্পা সেন্টারে একটি দলকে পাঠায়৷ সেখানে গিয়ে ওই দল স্পা-এর মধ্যে মহিলা এবং পুরুষদের আপত্তিজনক অবস্থায় দেখে৷ পালম বিহার পুলিশ স্টেশনের স্টেশন হাউস অফিসার ইনস্পেক্টর সুরেন্দর জানান, কাস্টমারের ছদ্মবেশে এক পুলিশকে পাঠানো হয় সেখানে, এবং বাকি টিম মলের বাইরে অপেক্ষা করতে থাকে৷

কাস্টমারের ছদ্মবেশে থাকা ওই পুলিশকে ওই মাসাজ পার্লারের মহিলা কর্মী আপত্তিজনক পরিষেবা দেওয়ার প্রস্তাব দেয়৷ সঙ্গে সঙ্গে বাইরে থাকা টিমকে খবর দেয় ওই কাস্টমাররূপী পুলিশ৷ স্পা-এ অভিযান চালিয়ে ২৫ জনকে হাতেনাতে ধরে ফেলে পুলিশ৷

এর আগে পুণেতেও দেহব্যবসার বড়সড় পর্দাফাঁস হয৷ গত ১ জুন এই চক্রে জড়িত থাকায় ৫ মহিলাকে গ্রেফতার করে কোরিগাঁও পুলিশ৷ জানা যায়, কোরেগাঁও পার্কে ওয়েসিস সালোঁ এবং স্পা ম্যাসাজ সেন্টারের আড়ালে দীর্ঘদিন ধরেই এই কাজ চলছিল৷ সেখানেই হানা দেয় পুলিশ৷ উদ্ধার হওয়া ৩ মহিলাকে হদসপুরে পুনর্বাসন কেন্দ্রে পাঠানো হয়৷

এই দেহব্যবসায় জড়িত থাকার অভিযোগে বিশাল পণ্ডিত নামে এক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করে পুলিশ৷ সে কোরেগাঁওয়েরই বাসিন্দা৷ তার সহযোগীও ধরা পড়ে পুলিশের জালে৷ নাম- আদিত্য সুলেমান৷ সে ওই ম্যাসাজ সেন্টারেরই কর্মী৷ দুঃস্থ মহিলাদের আর্থিক অনটনের সুবিধাকে হাতিয়ার করে তাদেরকে টার্গেট করত আদিত্য৷ তাদের কাজ আর টাকার প্রলোভন দেখিয়ে এই দেহব্যবসার কাজে যুক্ত করত৷

পপ্রশ্ন অনেক: নবম পর্ব

Tree-bute: আমফানের তাণ্ডবের পর কলকাতা শহরে শতাধিক গাছ বাঁচাল যারা