হায়দরাবাদ: দেশে বিজেপি বিরোধিতার প্রধান মুখে বলে নিজেকে দাবি করে থাকেন আসাদুদ্দিন ওয়াইসি। কিন্তু বিজেপি জমানাতেই বিপুল হারে বেড়েছে তাঁর আর্থিক কলেবর। যা নিয়ে উঠতে শুরু করেছে প্রশ্ন।

এআইএমআইএম প্রধান তথা হায়দরাবাদের সাংসদ আসাদুদ্দিন ওয়াইসি বিজেপি এবং নরেন্দ্র মোদীর প্রবল বিরোধী। ইউপিএ জমানায় জোট সরকারের অংশ ছিল তাঁর দল। যদিও সেই সঙ্গ তিনি ত্যাগ করেছেন। তেলেঙ্গানায় গত বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপি এবং কংগ্রেস দুই দলের বিরুদ্ধে গিয়ে সমর্থন জানিয়েছিলেন তেলেঙ্গানা রাষ্ট্রীয় সমিতিকে।

শাসক দলের সঙ্গে জোটে থাকা দলের শীর্ষ নেতার আর্থিক উন্নতির রহস্য নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে কংগ্রেস। আরও বড় বিষয় হচ্ছে ২০১৪ সালে কেন্দ্র মোদী সরকার আসার পর থেকেই আর্থিকভাবে উন্নতির শিখরে পৌঁছেছেন আসাদুদ্দিন। এই সম্পদের উৎস প্রকাশ্যে নিয়ে আসার দাবি করেছে কংগ্রেস। হায়দরাবাদ শহর কংগ্রেস কমিটির সংখ্যালঘু শাখার চেয়ারম্যান বলেছেন ওয়ালিউল্লা সমীর, “২০১৪ সালে লোকসভা নির্বাচনের সময়ে কমিশনকে দেওয়া তথ্য অনুসারে আসাদুদ্দিন ওয়াইসির সম্পত্তির পরিমাণ ছিল ৪.০৬ কোটি টাকার। পরবর্তী চার-পাঁচ বছরে তা তিন গুণ বেড়ে গেল। এটা আশ্চর্যের বিষয় নয়?”

নির্বাচন কমিশনের তথ্য অনুসারে, ২০০৪ সালে এআইএমআইএম প্রধান আসাদুদ্দিন ওয়াইসির সম্পত্তির পরিমাণ ছিল ৩৯ লক্ষ টাকার। ২০০৯ সালে তা হয় ৯৩ লক্ষ টাকায়। ২০১৪ সালে তা পাঁচ বছরে তা বেড়ে যায় প্রায় পাঁচ গুণ। ষোড়শ লোকসভা নির্বাচনের হলফনামায় নিজেকে চার কোটি টাকার সম্পত্তির মালিক বলে দাবি করেন আসাদুদ্দিন। ২০১৯ সালে সেই অঙ্কটা হয়েছে ১৩কোটি।

কংগ্রেস নেতা ওয়ালিউল্লা সমীর কটাক্ষ করে বলেছেন, “ওয়াইসির আর্থিক বৃদ্ধি সমগ্র দেশের থেকেও বাড়ছে। তাঁর এই সাফল্যের ফরমুলা সকলের জানা উচিত। তাহলে হায়দরাবাদে আর কোনও গরিব মানুষ থাকবে না।” সেই সঙ্গে তিনি আরও জানিয়েছেন যে ২০১৭-১৮ সালে দশ লক্ষ এক হাজার ৮০ টাকা আয়কর রিটার্ন দিয়েছিলেন। কিন্তু মেয়ের বিয়েছে কোটি টাকার উপরে খরচ করেছিলেন।

আসাদুদ্দিন ওয়াইসির নিজের কোনও গাড়ি নেই বলে দাবি করেন। কিন্তু নিজামের শহরের সাংসদকে সবসময় নতুন গাড়িতে করে ঘুরতে দেখা যায় বলে দাবি করেছেন ওয়ালিউল্লা সমীর। এই বিষয়ে তিনি বলেছেন, “প্রায় সব বিলাসবহুল গাড়ি নিত্যদিন আসাদুদ্দিনের বাড়ির সামনে দেখা যায়। প্রতি মাসে নতুন গাড়ি নিয়ে ঘোরেন। যদি নিজের গাড়ি না হয় তাহলে ওই বিলাসবহুল গাড়িগুলি তাঁকে কে বিনা খরচে চড়তে দেয়?”